Alexa
মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে উত্তাল শাবিপ্রবি, তদন্ত কমিটি গঠন

আপডেট : ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:১৭

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করছেন শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। আজ সোমবার সকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে ক্যাম্পাসে আন্দোলন শুরু করেন। 

শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের লাঠিপেটা, রাবার বুলেট, সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপের ঘটনায় শিক্ষকসহ অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী আহত হন। 

‘যেই ভিসি গ্রেনেড ছোড়ে সেই ভিসির পদত্যাগ চাই, যেই ভিসি ছাত্র মারে সেই ভিসি চাই না, যেই ভিসি গুলি ছোড়ে সেই ভিসির পদত্যাগ চাই, শিক্ষার্থীর ওপর হামলা কেন প্রশাসন জবাব চাই, সাস্টিয়ান সাস্টিয়ান এক হও এক হও’-সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে এসব স্লোগানে স্লোগানে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

ক্যাম্পাস বন্ধের ঘোষণা বর্জন করে ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা আন্দোলনরত এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থীর ওপর হামলার প্রতিবাদে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবে। আমাদের একদফা দাবি যেই ভিসি আমাদের ওপর হামলা চালাতে পারে সেই উপাচার্যকে আমরা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে চাই না। যতক্ষণ না পর্যন্ত উপাচার্য পদত্যাগ না করবেন ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যাব।

শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘হল ছেড়ে দেওয়ার যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে আমরা তা প্রত্যাখ্যান করছি। আমরা আমাদের হল ত্যাগ করব না আমাদের দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত।’ 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রক্টর ড. আলমগীর কবীরের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁর ফোন ব্যস্ত পাওয়া যায়। 

সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ফিজিক্যাল সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো রাশেদ তালুকদারকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। 

শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে উঠেছে শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের আন্দোলন। ছবি: আজকের পত্রিকা এর আগে রোববার বেলা পৌনে ৩টার দিকে উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদকে অবরুদ্ধ করে রাখেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। উপাচার্য তাঁর কার্যালয় থেকে বের হয়ে ডিনদের এক সভায় যাওয়ার সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের মুখে পড়েন। তাঁর সঙ্গে থাকা শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা তাঁকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে আশ্রয় নেন। পরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ওই ভবনের প্রধান ফটক অবরুদ্ধ করে স্লোগান দিতে থাকেন। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে পুলিশ উপাচার্যকে মুক্ত করতে ভবনের ভেতরে ঢুকতে চাইলে আন্দোলনকারীরা বাধা দেন। তখন বাগ্বিতণ্ডার একপর্যায়ে পুলিশ ২৭ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ২১টি সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ার পাশাপাশি লাঠিপেটা করে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে উপাচার্যকে মুক্ত করে। এ সময় অন্তত ৫০ শিক্ষার্থী এবং কয়েক শিক্ষক ও পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। 

এ পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করে। আজ সোমবার দুপুর ১২টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

এর আগে অসদাচরণের অভিযোগে এনে বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হলের প্রভোস্ট কমিটির পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে তোলেন ওই হলের শিক্ষার্থীরা। গত বৃহস্পতিবার রাত ৯টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন তাঁরা। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    দুলাভাইয়ের পরকীয়া জেনে যাওয়ায় শ্যালককে হত্যা, এক মাস পর কবর থেকে মরদেহ উত্তোলন 

    শেষ হলো তাজিয়া মিছিল

    মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে চা শ্রমিকদের কর্মবিরতি

    শোকের আবহে এগিয়ে চলছে তাজিয়া মিছিল

    বিয়ের দাবিতে ‘প্রেমিকে’র বাড়িতে তরুণীর অনশন

    ১০০ গাছ রোপণের শর্তে আসামিদের মুক্তি দিলেন আদালত

    ধীর লয়ের সেই তর্জনী আর উঠবে না কোনো দিন

    সবুজ আপেল

    হাতিয়ায় বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি: জীবিত উদ্ধার ৪, নিখোঁজ ১৩ জেলে

    উধুনিয়া বিলে নৌকায় মিনি ক্যাসিনো, আটক ৪

    কাউখালীতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৩

    ‘এত কারেন গেলে–আইলে কি কোনো কাম করন যায়’