Alexa
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

জাওয়াদে পেছাল বোরো চাষ

আপডেট : ১৫ জানুয়ারি ২০২২, ১১:৫৬

বীজতলা টেকানো নিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন যশোরের চৌগাছার কৃষকেরা। জলাবদ্ধতা পুরোপুরি না কাটায় অনেক বীজতলা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ছবি: আজকের পত্রিকা প্রতি বছর ডিসেম্বরের মধ্যেই বোরো রোপণ শেষ হয়ে যায়। কিন্তু এবার মধ্য জানুয়ারিতে এসেও বীজতলা টেকানো নিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন যশোরের চৌগাছার কৃষকেরা।

গত ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে টানা ভারী বৃষ্টিতে উপজেলার অধিকাংশ বোরোর বীজতলা নষ্ট হয়ে যায়। ফলে দ্বিতীয় দফায় বীজতলা তৈরি করলেও এখন শীত ও কুয়াশার কারণে সেই বীজ আশানুরূপ বাড়ছে না। এমনকি জলাবদ্ধতা পুরোপুরি না কাটায় অনেক বীজতলা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

এসবের ফলে এ বছর বোরো আবাদে অন্তত এক থেকে দেড় মাস পিছিয়ে পড়েছেন কৃষকেরা। শুধু তাই নয়, বোরোর লক্ষ্যমাত্রা পূরণ নিয়েও তাঁরা শঙ্কায় রয়েছেন। টানা বর্ষণে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা দূর না হওয়ায় অন্তত এক হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ না হওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন চাষিরা।

তবে উপজেলা কৃষি অফিসের দাবি, বৃষ্টিতে সবজি খেত নষ্ট হওয়ায় চলতি মৌসুমে বোরোর আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।

কৃষকেরা জানিয়েছেন, বোরো ধান চাষের সময় শুরু হয় মূলত আমন ওঠার পরপরই। আর আমন ধান কাটা শেষ হয় সাধারণত নভেম্বরের মধ্যেই। তবে কারও কারও ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ লেগে যায়। এর পরপরই শুরু হয় বোরোর বীজতলা তৈরির কাজ। রোপণ শেষ হয়ে যায় সর্বোচ্চ ডিসেম্বরের মধ্যেই।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ১৭ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে টানা বর্ষণের জলাবদ্ধতায় প্রায় দেড় হাজার হেক্টর নিচু জমিতে এবার বোরো আবাদ সম্ভব হবে না।

গত বুধ ও বৃহস্পতিবার উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, চৌগাছা পৌরসভার কংশারীপুরের জিওলগাড়ী বিল, নারায়ণপুর ইউনিয়নের বড়খানপুর, চাঁদপাড়া, পাশাপোল ইউনিয়নের বাড়িয়ালী, গোবিন্দপুর, পাশাপোল, স্বরূপদাহ ইউনিয়নের বাঘারদাড়ি, সুখপুকুরিয়া ইউনিয়নের আন্দুলিয়া, রামকৃষ্ণপুর, আড়সিংড়িসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বিল বা নিচু জমি এখনো জলাবদ্ধ রয়েছে। ফলে এসব এলাকার এক থেকে দেড় হাজার হেক্টর জমিতে চলতি মৌসুমে আর বোরো ধান চাষ সম্ভব হবে না বলে মনে করছেন কৃষকেরা।

অন্য দিকে টানা বর্ষণে সে সময় বোরোর প্রায় ৫০ হেক্টর বীজতলা নষ্ট হয়ে যায়। উপজেলা কৃষি অফিসের হিসাব অনুযায়ী, ৪০ হেক্টর বীজতলা নষ্ট হয়ে যায়। এর মধ্যে ৩০ হেক্টর বীজতলা সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায় তখন। পরে চাষিরা আবারও বীজতলা তৈরি করলেও চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহের শৈত্যপ্রবাহের কারণে সেসব বীজতলাও নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

কৃষকেরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত শীত ও কুয়াশার কারণে ধানের চারা হলুদ হয়ে যাচ্ছে। কেউ কেউ পলিথিন দিয়ে ঢেকে বীজতলা রক্ষা করার চেষ্টা করছেন। তবে শীতের কারণে চারা বড় হতে দেরি হচ্ছে। এসব কারণে এবারের বোরো মৌসুম এক থেকে দেড় মাস পিছিয়ে যাবে বলেও জানিয়েছেন চাষিরা।

উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের হাজরাখানা গ্রামের কৃষক আবুল কাশেম বলেন, ‘আমি তিন বিঘা জমিতে বোরো চাষ করার জন্য প্রস্তুতি নেই। সেই হিসেবে বীজতলা তৈরি করেছিলাম। কিন্তু ডিসেম্বরের শুরুতে টানা বৃষ্টিতে বীজতলা নষ্ট হয়ে যায়। বৃষ্টিতে এই বীজতলায় হাঁটুপানি জমে গিয়েছিল। সব চারাই নষ্ট হয়ে যায় তখন।’

নতুন বীজতলা দেখিয়ে আবুল কাশেম বলেন, ‘আবারও বীজতলা তৈরি করেছি, কিন্তু এ মাসের অতিরিক্ত শীত ও কুয়াশায় সেসব চারাও হলুদ হয়ে যাচ্ছে। এসব কারণে এবার বোরো চাষের মৌসুম এক থেকে দেড় মাস পিছিয়ে যাবে।’

কৃষকেরা বলছেন, গত দুই তিন দিন থেকে আকাশ আবারও মেঘাচ্ছন্ন ও কুয়াশা ঢেকে আছে, যা শুক্রবারও অব্যাহত ছিল। তাঁদের আশঙ্কা, জানুয়ারিতে আবারও শৈত্যপ্রবাহ দেখা দিলে বোরো চারার সংকট দেখা দিতে পারে।

চৌগাছা সদর ইউনিয়নের বেড়গোবিন্দপুর গ্রামের কৃষক আলী কদর বলেন, ‘ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহের টানা বর্ষণে বাঁওড়ের পাশের নিচু জমিতে ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সেই পানি এখন অনেকটাই নেমে গেছে। এসব স্থানে বোরো চাষ হলেও অন্যান্য এলাকার তুলনায় পিছিয়ে পড়তে হয়েছে।’

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য মতে, ‘ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে অতিবৃষ্টির কারণে রোপা আমন, বোরো বীজতলা, মসুর, গম, সরিষা, সবজি, আলু, পেঁয়াজ, মরিচ, ভুট্টা, রসুন ও চিনাবাদামসহ উপজেলার ৪ হাজার ৯৯৩ হেক্টর জমির বিভিন্ন ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর মধ্যে ৩৯৫ হেক্টর জমির ফসল সম্পূর্ণ নষ্ট এবং ৪ হাজার ৬০০ হেক্টর জমির ফসল আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যাতে ১০ হাজার ৯৪৪ কৃষক সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হন। যদিও কৃষকেরা বলছেন, সে সময় সরকারি হিসাবের চেয়েও বেশি ক্ষতি হয়েছিল।

এদিকে বৃষ্টিতে সবজি খেত নষ্ট হওয়ায় এবার বোরোর আবাদ বেশি হবে বলে মনে করছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সমরেন বিশ্বাস।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেন, ‘ডিসেম্বরে টানা বৃষ্টিতে চৌগাছায় অন্যান্য ফসল নষ্ট হওয়ায় কৃষকেরা সেখানে বোরো আবাদের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। সে হিসাবে বোরো চাষ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    দোয়া সফলতার হাতিয়ার

    ফ্যাশনেবল ফিউশন

    নিরাপদ অভিবাসন নিয়ে কর্মশালা

    ঘাটাইলে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৩ অবৈধ ইটভাটা

    জরাজীর্ণ টিনের ঘরে ৩৮ বছর পাঠদান

    ৫ ইউপিতে আওয়ামী লীগের ৭ বিদ্রোহী

    মানিকগঞ্জে কৃষক শাইজুদ্দিন হত্যা মামলায় ১ জনের ফাঁসির আদেশ

    শার্শায় শাকিব হত্যার ৩ আসামি গ্রেপ্তার

    গ্রাহক সেবা বাড়াতে আমাজনের সঙ্গে চুক্তি করছে টেলিনর

    রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ক্যাম্প চালু করল হোপ’ ৮৭ 

    কিংবদন্তিদের মেলায় যাওয়া হচ্ছে না রফিক সুমনদের

    দুর্নীতি রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে ডিসিদের সহযোগিতা চায় দুদক