Alexa
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

টিকা দিতে চিরুনি অভিযান

আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:৫৯

প্রতীকী ছবি যশোরের চৌগাছা উপজেলা শত ভাগ করোনার টিকার আওতায় আনতে চিরুনি অভিযান শুরু করতে যাচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগ। ইতিমধ্যে নির্বাচন অফিস থেকে উপজেলার ভোটারদের তথ্যভান্ডার সংগ্রহ করা হয়েছে।

তথ্যভান্ডার অনুযায়ী গ্রামভিত্তিক তালিকা করে কাল শনিবার থেকে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গিয়ে করোনার টিকা দেওয়া হবে। যাঁরা এখনো টিকা নেননি তাঁদের প্রয়োজনে বাড়ি থেকে ধরে এনে টিকা দেওয়া হবে। এমনটাই জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, কাল শনিবার উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ২৭টি ওয়ার্ডে গণটিকা দেওয়ার মাধ্যমে এই অভিযান শুরু হচ্ছে। প্রথম দিনে উপজেলার সিংহঝুলি, ধুলিয়ানী ও চৌগাছা সদর ইউনিয়নের ২৭টি ওয়ার্ডে এই গণটিকা দেবেন স্বাস্থ্য কর্মীরা। প্রতি ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত একটি স্থানে এই টিকা দেওয়া হবে।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, ওয়ার্ডের ক্রমানুসারে শনিবার সিংহঝুলি ইউনিয়নের সিংহঝুলি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাঝালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সিংহঝুলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মসিয়ূরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জগন্নাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জগন্নাথপুর শহীদ স্মরণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গরীবপুর আদর্শ বিদ্যাপীঠ, গরীবপুর কওমিয়া ও হাফেজিয়া মাদ্রাসা এবং গরীবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

ধুলিয়ানী ইউনিয়নের উজিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুক্তারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভাদড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ফতেপুর বাজার, কুষ্টিয়া-ফতেপুর প্রতিবন্ধী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শাহাজাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাবিলপুর কমিউনিটি ক্লিনিক, মুকুন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ধুলিয়ানী পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র।

চৌগাছা সদর ইউনিয়নের এক ও দুই নম্বর ওয়ার্ড ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে, কয়ারপাড়া ফুরকানিয়া মাদ্রাসা, লস্কারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মন্মথপুর (চাঁদপুর) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেড়গোবিন্দপুর মাদ্রাসা, বেড়গোবিন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দিঘলসিংহা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মস্যমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই গণটিকা দেওয়া হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোছা. লুৎফুন্নাহার বলেন, ‘আমরা শতভাগ টিকা কার্যক্রমের লক্ষে হাসপাতালের পাশাপাশি ইউনিয়ন পরিষদ, বিভিন্ন কমিউনিটি ক্লিনিক ও উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে টিকা দিয়েছি। তাতেও শতভাগ সম্পন্ন না হওয়ায় ব্লক (অন্যান্য সকল টিকা কেন্দ্র) ভিত্তিতে টিকা কার্যক্রম শুরু করেছি।’

ডা. মোছা. লুৎফুন্নাহার বলেন, ‘এর পাশাপাশি দ্রুত শত ভাগ টিকা কার্যক্রম সম্পন্ন করতে শনিবার থেকে ইউনিয়ন ভিত্তিক প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে কেন্দ্র ওয়ার্ডের যারা টিকা নেননি সবাইকে বাড়ি থেকে এনে টিকা দেওয়া হবে। এই কার্যক্রম সম্পন্ন করতে এরই মধ্যে নির্বাচন অফিস থেকে ডেটাবেইস তালিকা সংগ্রহ করা হয়েছে। শত ভাগ টিকা কার্যক্রম সম্পন্ন করতে প্রয়োজনে চিরুনি অভিযান চালিয়ে বাড়ি থেকে নিয়ে এসে টিকা দেওয়া হবে।’

টিকা নিতে আগ্রহ তলানিতে: চৌগাছায় করোনার টিকা নিতে সাধারণ মানুষের মধ্যে আগ্রহ কম দেখা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তাঁরা বলছেন, বিশেষ করে বুস্টার ডোজ টিকা দেওয়া শুরু হলেও এই তৃতীয় ডোজ নিতে আশানুরূপ সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না।

গত সোমবার পর্যন্ত উপজেলায় বুস্টার ডোজ দেওয়ার জন্য ১১২৮ ব্যক্তিকে খুদেবার্তা দেওয়া হলেও টিকা নিয়েছেন মাত্র ৫৪৬ জন। ৫৮২ জন খুদেবার্তা (এসএমএস) পেয়েও টিকা নিতে আসেননি। এসব বিবেচনায় করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ নিতে বারবার খুদেবার্তা ও মসজিদে মাইকিং করা হচ্ছে উপজেলাটিতে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, চৌগাছায় করোনা টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু হয় ৩০ ডিসেম্বর থেকে। প্রথম দিনে ১৫৯ জনকে এসএমএস দেওয়া হলেও সেদিন টিকা নেন মাত্র ৩২ জন। এর পর ১ জানুয়ারি ৩০৮ জনকে খুদেবার্তা দেওয়া হলেও টিকা নেন ১২০ জন। ২ জানুয়ারি খুদেবার্তা দেওয়া হয় ২৬১ জনকে। টিকা নেন ১৪০ জন। ৪ জানুয়ারি ২৭ জনকে খুদেবার্তা দেওয়া হয়। সেদিন টিকা নেন ২৯ জন। ৫ জানুয়ারি কাউকে খুদেবার্তা দেওয়া হয়নি। তবে এদিন টিকা নিয়েছেন ৩৮ জন। অর্থাৎ খুদেবার্তা পাওয়া ব্যক্তিদের অর্ধেকও টিকা নিতে আসছেন না।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে আরও জানা যায়, উপজেলায় এ পর্যন্ত মোট টিকার নিবন্ধন করেছেন ১ লাখ ৪০ হাজার ২৫৪ জন। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ২৭ হাজার ৭১ জন। খুদেবার্তা পেয়েও ১৩ হাজার ১৩৮ জন টিকার প্রথম ডোজ নেননি। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৮৭ জন। খুদেবার্তা পেয়েও প্রায় ১৫ হাজার ব্যক্তি দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিতে আসেননি।

এসব বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোছা. লুৎফুন্নাহার বলেন, ‘টিকা গ্রহণের হার হতাশাজনকভাবে কমে গেছে। খুদেবার্তা পাওয়া ব্যক্তিদের অর্ধেকেও টিকা নিতে আসছেন না। ফলে স্বাস্থ্যকর্মীরা বিড়ম্বনায় পড়ছেন। টিকা নেওয়ার জন্য আমরা জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে মসজিদে মসজিদে মাইকিং করা হচ্ছে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    দোয়া সফলতার হাতিয়ার

    শ্রীবরদীতে সারের কৃত্রিম সংকট, বেশি দামে বিক্রি

    ফ্যাশনেবল ফিউশন

    নিরাপদ অভিবাসন নিয়ে কর্মশালা

    ঘাটাইলে গুঁড়িয়ে দেওয়া হলো ৩ অবৈধ ইটভাটা

    দুর্নীতি রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে ডিসিদের সহযোগিতা চায় দুদক

    ৪ জেলায় বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, তিন বিভাগে বৃষ্টির আভাস

    ৭০০ এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট চালুর মাইলফলক অর্জন করল ব্র্যাক ব্যাংক

    জীবন বীমার এমডিসহ দুজনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    জাবিতে ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগ তদন্তে ইউজিসি, শিক্ষক সমিতির আপত্তি

    ওমিক্রন নিয়ে সংশয়ের মূল বর্ণবাদ, দাবি দ. আফ্রিকান বিজ্ঞানীদের