Alexa
বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

লকডাউনে দেখতে পারেন

বিখ্যাতদের পছন্দের সিনেমা

আপডেট : ৩০ জুলাই ২০২১, ০০:৪৬

আইনস্টাইনের পছন্দের ছবি ‘সিটি লাইটস’ আলবার্ট আইনস্টাইন, বিজ্ঞানী

প্রিয় ছবি: সিটি লাইটস (১৯৩১)
বিখ্যাত অভিনেতা ও নির্মাতা চার্লি চ্যাপলিনের অনবদ্য সৃষ্টি ‘সিটি লাইটস’। চ্যাপলিন এ ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন, পরিচালনা–প্রযোজনা করেছেন, অভিনয় করেছেন ভবঘুরে চরিত্রে। শুধু তাই নয়, ছবির সংগীত পরিচালকও তিনি। সেই সময়ে তৈরি করতে খরচ হয়েছিল ১৫ লক্ষ ডলার। চ্যাপলিন এ ছবিতে দেখিয়েছেন প্রেম ও মানবিক মূল্যবোধ মানুষের জীবনে কতটা নিবিড়ভাবে জড়িয়ে থাকে।

‘সিটি লাইটস’ আলবার্ট আইনস্টাইনের সবচেয়ে পছন্দের সিনেমা। ছবিটির প্রিমিয়ার শোয়েও উপস্থিত ছিলেন আইনস্টাইন।

মাইকেল জ্যাকসনের পছন্দের ছবি ‘ই.টি’

মাইকেল জ্যাকসন, গায়ক

প্রিয় ছবি: ই.টি. দ্য এক্সট্রা-টেরেস্ট্রিয়াল (১৯৮২)
ইলিয়ট নামের এক কিশোর, তার সঙ্গে পরিচয় হয় ভিনগ্রহের এক বাসিন্দার– এ নিয়েই ‘ই.টি’ ছবির গল্প। বিজ্ঞান কল্পকাহিনি নির্ভর এ ছবির গল্প লিখেছিলেন মেলিসা ম্যাথিসন। বাবা–মায়ের বিচ্ছেদের পর বড্ড একা হয়ে পড়েছিলেন স্টিভেন স্পিলবার্গ। ওই সময় কল্পনায় এক বন্ধুকে তৈরি করেছিলেন তিনি। তার সঙ্গেই সময় কাটাতেন। ‘ই.টি’–র প্রধান চরিত্রের অনুপ্রেরণা সেখান থেকেই। ১৯৮১ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরে শুটিং হয়েছিল ছবিটির। বাজেট ছিল প্রায় ১১ মিলিয়ন ডলার। ১৯৮২ সালের ১১ জুনে মুক্তি পাওয়ার পর দ্রুতই বক্সঅফিসে ঝড় তোলে ‘ই.টি’।

‘দ্য গডফাদার’ এর প্রথম দুটো পর্ব বারাক ওবামার ভীষণ পছন্দের

বারাক ওমাবা, রাজনীতিক

গডফাদার–১ম ও ২য় পর্ব (১৯৭২ ও ১৯৭৪)
অপরাধজগত আর মাফিয়া নিয়ে বানানো এখন পর্যন্ত সেরা ছবি বলা হয় ‘দ্য গডফাদার’–কে। ইতালির সিসিলি থেকে আসা সাধারণ এক লোক হয়ে যায় আমেরিকার অন্ধকার জগতের ডন। তাঁকে নিয়েই গল্প। মারিয়ো পুজোর বিখ্যাত উপন্যাস ‘দ্য গডফাদার’ অবলম্বনে ছবিটি বানিয়েছেন ফ্রান্সিস ফোর্ড কপোলা।

স্পিলবার্গের সবচেয়ে পছন্দের ছবি ‘লরেন্স অব অ্যারাবিয়া’

স্টিভেন স্পিলবার্গ, নির্মাতা

প্রিয় ছবি: লরেন্স অব অ্যারাবিয়া (১৯৬২)
এ ছবিটি বানিয়েছেন ডেভিড লিন। বাঘা বাঘা সব অভিনয়শিল্পী নিয়ে তৈরি ছবিটির গল্প ব্রিটিশ সেনা কর্মকর্তা, প্রত্নতাত্ত্বিক, লেখক থমাস এডওয়ার্ড লরেন্সকে নিয়ে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় অটোমান সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে আরবদের স্বাধীনতা আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী এডওয়ার্ড লরেন্সের সংগ্রামের গল্পই উঠে এসেছে ‘লরেন্স অব অ্যারাবিয়া’–তে। লরেন্সের চরিত্রে অভিনয় করেছেন পিটার ও’টুল। সর্বকালের অন্যতম ক্লাসিক সিনেমা হিসেবে বিবেচনা করা হয় এ ছবিকে।

ঐশ্বরিয়ার পছন্দের ছবির তালিকার শীর্ষে আছে ‘কাসাব্লাংকা’

ঐশ্বরিয়া রাই, অভিনেত্রী

প্রিয় ছবি: কাসাব্লাংকা (১৯৪২)
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে মরক্কোর কাসাব্লাঙ্কা শহরে গড়ে উঠেছে এই ছবির কাহিনি। এটিকে হলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় সিনেমা হিসেবে ধরা হয়। বানিয়েছেন মাইকেল কার্টিজ। একজন ছদ্মবেশি প্রবাসী আমেরিকান ক্যাফে মালিক তার প্রাক্তন প্রেমিকা এবং প্রেমিকার পলাতক স্বামীকে নাৎসিদের থেকে বাঁচতে সহায়তা করবেন কিনা– তা নিয়ে দ্বিধায় আছেন। এখান থেকেই শুরু গল্প। ‘কাসাব্লাংকা’ ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন হামফ্রি বোগার্ট ও ইনগ্রিড বার্গম্যান।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    নাটকের সংখ্যা বাড়ছে চরিত্রের ক্ষুধা মেটেনি

    স্ট্যাটাস লিখে হানিফ সংকেত প্রমাণ দিলেন তিনি বেঁচে আছেন

    প্রকাশ্যে ‘থর: লাভ অ্যান্ড থান্ডার’-এর ট্রেলার

    আসছে বিগ বসের নতুন সিজন

    মৃত্যুর গুজবে বিব্রত হানিফ সংকেত

    ৭ দিনব্যাপী লোকজীবনভিত্তিক শিল্পানুশীলন

    কামারখন্দে অজ্ঞাত বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

    হামলার পরিকল্পনা খুদেবার্তায় আগেই জানিয়েছিলেন খুনি

    তীব্র স্রোতে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

    নিলামে দল না পাওয়া এক ক্রিকেটারই কোহলিদের জয়ের নায়ক

    চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ১ অক্টোবর

    ‘জোরে কথা বলায়’ মাদ্রাসাছাত্রকে মাথায় তুলে আছাড়