Alexa
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

চট্টগ্রামের তিন উপজেলার ২৪ ইউপি

আজ ভোট, কঠোর নিরাপত্তা

আপডেট : ০৫ জানুয়ারি ২০২২, ১১:৫২

ইউপি নির্বাচনের সরঞ্জাম গতকাল চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে নিয়ে যান সংশ্লিষ্ট কর্মীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা উৎকণ্ঠা ও সংঘাতের শঙ্কা মাথায় নিয়ে চট্টগ্রামের তিন উপজেলার ২৪ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ভোট আজ বুধবার অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যে নির্বাচন ঘিরে কঠোর নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা নির্বাচনী সরঞ্জাম নিয়ে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছেন।

আনোয়ারা: এই উপজেলার ১১ ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে বৈরাগ, বারশত, রায়পুর, বটতলী, বরুমচড়া, বারখাইন, আনোয়ারা সদর, চাতরী, পরৈকোড়া ও হাইলধর ইউপিতে আজ নির্বাচন। এসব ইউপির ৯২ কেন্দ্রে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে ৯২ জন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা। এ ছাড়া ৫৩১ জন সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, ১ হাজার ৬২ জন পোলিং কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করবেন।

১০ ইউপির মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৯৫ হাজার ৪৫০ জন। তাঁদের মধ্যে ১ লাখ ২ হাজার ৯৯১ জন পুরুষ ও ৯২ হাজার ৪৫৯ জন নারী। এতে চেয়ারম্যান পদে ২০ জন, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৯১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৮১ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নির্বাচনকে ঘিরে ইতিমধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে বেশ কয়েক দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এ সব ঘটনায় কয়েকটি মামলা হয়েছে। এ সব কারণে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কিত ভোটারেরা। কিছু কিছু প্রার্থীও এ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

রায়পুর ইউপির ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার ফারজানা বেগম বলেন, ‘ভোট কেন্দ্রে গিয়ে আমার জীবনের প্রথম ভোট পছন্দের প্রার্থীকে দিতে চাই।’

আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম দিদারুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে। কোনো ধরনের গোলযোগ সৃষ্টি করলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ জোবায়ের আহমেদ বলেন, মাঠে পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি র‍্যাব ও বিজিবির টহল থাকবে। উপকূলীয় এলাকায় প্রয়োজনে কোস্টগার্ডের সহায়তাও নেওয়া হবে। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ করতে সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। কোনো ধরনের গোলযোগের খবর পেলে সঙ্গে সঙ্গে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চন্দনাইশ: চন্দনাইশ উপজেলার ৭ ইউপির নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে লড়ছে ২৫ জন প্রার্থী। এ ছাড়া সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৫৬ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২২৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ৭ ইউপির ৬৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৩টি অতি গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ), ২৫টি গুরুত্বপূর্ণ ও ১৫টি কেন্দ্র সাধারণ ঘোষণা করা হয়েছে। অতিরিক্ত গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রের মধ্যে কাঞ্চনাবাদে ৪টি, বরকলে ৪টি, বরমাতে ৫টি, বৈলতলীতে ৪টি, হাশিমপুরে ৩টি, ধোপাছড়িতে ৪টি কেন্দ্র রয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মিনহাজুল ইসলাম বলেন, ৬৩টি কেন্দ্রে ২৭৩টি বুথ রয়েছে। এ জন্য ৬৩ জন প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, ২৭৩ জন সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ও ৫৪৬ জন পোলিং কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

বৈলতলী ইউপিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এস এম সায়েমের অভিযোগ, ‘আমার এলাকায় বিদ্রোহী প্রার্থী টাকার খেলা খেলছে। তিনি সশস্ত্র মহড়া দিয়ে আমার সমর্থকদের ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার হুমকি দিচ্ছেন।’

এসব অস্বীকার করে ওই ইউপির বিদ্রোহী প্রার্থী আনোয়ারুল মোস্তফা চৌধুরী দুলাল বলেন, ‘নির্বাচনে ভোট কেনার মতো কালো টাকা আমার কাছে নাই। আমি জীবনে অস্ত্রই দেখিনি। আমি কেমনে অস্ত্রের মহড়া দেব?’

বোয়ালখালী: উপজেলার সাত ইউপিতে ২৫ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে ৪ ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিপক্ষে লড়ছেন ৪ বিদ্রোহী।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম বলেন, ৭ ইউপির ১৬৪টি কেন্দ্রে ভোটের জন্য প্রিসাইডিং কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে নির্বাচনী সরঞ্জাম কেন্দ্রে পৌঁছানো হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    শ্রমিকের বদলে যন্ত্রের ব্যবহার কমেছে উৎপাদন খরচ

    বেকারি পণ্যের মূল্য দ্বিগুণ

    পণ্য নিয়ে জাহাজ আটকা

    যমুনায় বাড়ছে পানি, তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চলের ফসলি জমি

    শত মিটারের যত ভোগান্তি

    দোকানে দখল আশ্রয়ণের জমি

    ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামেও 

    এডিস নিয়ন্ত্রণে দক্ষিণ সিটিতে ১৫ জুন থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত