Alexa
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

সুরাইয়ার জন্য শুভকামনা

আপডেট : ০৫ জানুয়ারি ২০২২, ০৮:৩৮

সুরাইয়ার জন্য শুভকামনা তা যদি জানা থাকত, তাহলে হয়তো ভালোই হতো। আজকের পত্রিকায় প্রকাশিত সুরাইয়ার স্কুলে যাওয়ার খবরটি পড়ে যে কারও মনে একই সঙ্গে ভালো এবং খারাপ দুটি অনুভূতিই ক্রিয়াশীল হওয়ার কথা। ভালো লাগবে এটা জেনে যে সুরাইয়া শিক্ষাজীবন শুরু করেছে আর খারাপ লাগবে তার শারীরিক প্রতিবন্ধকতার কথা জেনে।

প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, মাতৃগর্ভেই গুলিবিদ্ধ হয়েছিল সুরাইয়া। তখন তার জীবন রক্ষা করাই কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সেই সুরাইয়া এবার স্কুলে যাচ্ছে। তাকে ভর্তি করা হয়েছে মাগুরা শহরের পুলিশ লাইনস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণিতে। গত রোববার সকালে মা-বাবার কোলে চড়ে স্কুলে যায় সুরাইয়া।

২০১৫ সালের ২৩ জুলাই মাগুরা শহরের দোয়ারপাড়ায় ক্ষমতাসীন দলের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। তখন পথচারী নাজমা বেগম গুলিবিদ্ধ হন, গুলি লাগে তাঁর গর্ভে থাকা শিশুর শরীরেও। গুলিটি শিশুর পিট দিয়ে ঢুকে বুকের ডান পাশ দিয়ে বের হয়ে ডান চোখে আঘাত করে। মাগুরা সদর হাসপাতালে জটিল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সুরাইয়া পৃথিবীর আলো দেখে।

সুরাইয়ার মা নাজমা বেগম জানিয়েছেন, গুলির আঘাতে সুরাইয়ার ডান চোখ পুরোপুরি নষ্ট হয়ে গেছে। ডান চোখে সে কিছু দেখতে পায় না। বাঁ চোখের অবস্থাও ভালো নয়। ঢাকার চিকিৎসকেরা জানিয়েছিলেন, ডান চোখ তুলে না ফেললে বাঁ চোখটিও নষ্ট হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। সুরাইয়ার বয়সী অন্য শিশুরা দৌড়ে খেলাধুলা করে বেড়াতে পারলেও, সে কিছুই পারে না। এমনকি দাঁড়াতেও পারে না। কারও সাহায্য ছাড়া সে হাঁটতে পারে না। তবে এটা জানা গেছে যে উন্নত চিকিৎসা দিতে পারলে ভালো হয়ে যাবে সুরাইয়া। সুরাইয়ার অভিভাবকদের তাকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়ার মতো আর্থিক সংগতি নেই। সুরাইয়ার জন্মের সময় অনেকে কথা দিলেও এখন কেউ আর পাশে নেই বলে আক্ষেপ করেছেন সুরাইয়ার মা।

এ খবরটি সরকারি কোনো মহলের নজরে পড়েছে বা পড়বে কি না, জানি না। তবে পড়া উচিত এবং সুরাইয়ার পাশে দাঁড়ানো দরকার সরকারেরই। তার উপযুক্ত ও উন্নত চিকিৎসা দিয়ে তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার সুযোগ করে দিতে হবে সরকারকেই। কারণ, অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো সরকারের একটি অন্যতম দায়িত্ব। সুরাইয়ার জীবনে যে দুর্যোগ সৃষ্টি হয়েছে তার পেছনে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের দায় আছে। ক্ষমতাসীন দলের দুই পক্ষের গোলাগুলির মধ্যে পড়ে গুলিবিদ্ধ না হলে এমন দুঃসহ অবস্থা সুরাইয়ার জীবনে হতো না। ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতৃত্বও বিষয়টি সহানুভূতির সঙ্গে দেখতে পারেন। আধিপত্য বিস্তারের জন্য কোন্দল করে অন্যদের ক্ষতি করলে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ব্যবস্থাও করতে হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    পণ্য নিয়ে জাহাজ আটকা

    যমুনায় বাড়ছে পানি, তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চলের ফসলি জমি

    শত মিটারের যত ভোগান্তি

    দোকানে দখল আশ্রয়ণের জমি

    বৃদ্ধকে শিকলে বেঁধে ঘরবন্দী, গ্রেপ্তার ২

    বোরো ধানে লোকসানের শঙ্কা

    ২ জুন রাজধানীতে শুরু হচ্ছে ‘কিচেন অ্যান্ড বাথ এক্সপো’

    ধামরাইয়ে ২ শিক্ষার্থীকে আটকে চাঁদা দাবির অভিযোগ, আটক ৪ 

    নতুন ঘর-দোকান পেলেন সেই এতিম তিন বোন

    স্বামীর মৃত্যুর দুদিন পর মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে স্ত্রী

    পরিবারের সবাইকে অচেতন করে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগ, থানায় মামলা

    আপিল করলেন হাজী সেলিম, চাইলেন জামিন