Alexa
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 
ফিরে দেখা

তিস্তার ভাঙন আর আকস্মিক ঢলে বিপর্যস্ত জনজীবন

আপডেট : ৩১ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৪৩

গঙ্গাচড়ায় গত অক্টোবরে তিস্তা নদীতে দেখা দেওয়া আকস্মিক ঢলে ভেসে যায় অনেকের ঘরবাড়ি। ছবি: আজকের পত্রিকা রংপুরে বিশেষ করে গঙ্গাচড়া ও কাউনিয়া উপজেলায় বিদায়ী বছরে নদীতীরের জনজীবন বিপর্যস্ত করে তুলেছিল তিস্তার ভাঙন আর আকস্মিক ঢল। এতে কয়েক শ পরিবার ঘরবাড়ি হারিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিপুল পরিমাণ ফসলি জমি ও মাছের খামার।

গঙ্গাচড়ায় দফায় দফায় বন্যার পাশাপাশি ২০ অক্টোবর বুধবার সন্ধ্যায় তিস্তার আকস্মিক ঢলে তলিয়ে যায় তীরবর্তী এলাকা। এসব দুর্যোগ কেড়ে নিয়েছে কয়েক শ পরিবারের ঘরবাড়ি, ফসলি জমি। অনেক পরিবার আশ্রয় হারিয়ে আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে ঠাঁই নিয়েছে।

সম্প্রতি লক্ষ্মীটারি ইউনিয়নের পশ্চিম ইচলি, কেল্লারপার ও বাগেরহাট এবং কোলকোন্দ ইউনিয়নের চর বিনবিনা, চর চিলাখাল ও মটুকপুর ঘুরে দেখা গেছে, পরিবারগুলো এখনো ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। তাঁদের করুন অবস্থা বিরাজ করছে।

পশ্চিম ইচলি গ্রামের সাইদুল হক বলেন, ‘এক দিনের ভয়াবহ বন্যায় তিস্তা নদীর ঢেউয়ে আমরা তিনটি ঘর চোখের সামনে ভেসে যায়। কিছুই বাঁচাতে পারি নাই। দুই মাস হয়ে যাচ্ছে, কোনো সরকারি লোক খোঁজখবর নেয় নাই। এখন আমি আমার ছোট ভাইয়ের বাড়িতে তার থাকার ঘরে ভাগাভাগি করে পরিবার নিয়ে আছি।’

একেই গ্রামের ফজলু মিয়া বলেন, ‘আমার থাকার ঘর ছিল দুটি, একটিও বাঁচাতে পারি নাই। এখন ইচলি গ্রামে আমার মামা মোকলেছুর রহমান একটি ঘর দিছে, সে ঘরে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কোনোরকমে আছি।’

উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এই আকস্মিক ঢলের ফলে সৃষ্ট এক দিনের বন্যায় ২ হাজার ৯২১টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে যায় ৩০২টি পরিবারের।

তিস্তার চর ছালাপাক গ্রামের কৃষক সহিদার রহমান জানান, তিনি ১ লাখ টাকা খরচ করে আড়াই হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়ার বীজ লাগিয়েছিলেন। বন্যায় এর সব ভেসে যায়।

আলমবিদিতরের লাবলু মিয়া বলেন, ‘চলতি বছর মাছ চাষে সব মিলিয়ে আমার খরচ হয় ৭ লাখ টাকা। বিক্রির আগ মুহূর্তে বন্যায় সব মাছ ভেসে গেছে।’

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্যমতে, বন্যায় ২১৫ হেক্টর জমির রোপা আমন, সবজি, মরিচ, চীনা বাদামখেতের ক্ষতি হয়। আর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, বন্যায় ৪৮৩টি পুকুরের মাছ ভেসে যায়।

কাউনিয়ায় বিদায়ী বছরে তিস্তায় বসতভিটা হারিয়েছে অন্তত দেড় শ পরিবার। এ ছাড়া বেশ কয়েকবারের বন্যায় কৃষি ও মৎস্য খাতে প্রায় ৮৫ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে।

তিস্তা নদীভাঙন রোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে তিস্তার করাল গ্রাসে শত শত পরিবার নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে। চলতি বছরেই প্রায় দেড় শ পরিবার ভাঙনে বসতভিটা আর আবাদি জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছে। এসব পরিবারের মানুষগুলো কেউ কেউ সরকারি বাঁধ ও রাস্তার ধারে আবার অনেকে অন্যের জমিতে আশ্রয় নিয়ে মানবতার জীবনযাপন করছেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আহসান হাবিব সরকার জানান, তিস্তা তীরবর্তী তালুকশাহাবজ, নিজপাড়া, পাঞ্চরভাঙ্গা, ঢুষমারা, আরাজী হরিশ্বর, চরহয়বৎখাঁ ও চরগনাই গ্রামের ১৪০টি পরিবারর ভিটা নদীভাঙনের শিকার হয়েছে। এসব পরিবার ফসলি জমিও হারিয়েছে। এসব পরিবারকে সরকারিভাবে ঘর নির্মাণের জন্য ঢেউটিনসহ আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফারজানা রহমান জানান, বিদায়ী বছর বন্যায় বিভিন্ন গ্রামে প্রায় ১৫ হেক্টর জমির ৬০টি মৎস্য খামার ও পুকুরের ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২ লাখ টাকা।

উপজেলা কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, হারাগাছ, শহীদবাগ, বালাপাড়া ও টেপামধুপুর ইউনিয়নে তীরবর্তী বিভিন্ন গ্রামে তিস্তার ভাঙনে প্রায় ১১ হেক্টর আবাদি জমি বিলীন হয়ে গেছে। এ ছাড়া গত অক্টোবরসহ বেশ কয়েকবার বন্যায় ৩৩০ হেক্টর আমন ধানসহ বিভিন্ন সবজিখেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৮৪ লাখ টাকা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহনাজ পারভীন জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের কৃষি বিভাগের উদ্যোগে ধান, পাট, গম, বাদামসহ বিভিন্ন সবজির বীজ, সার ও কৃষি উপকরণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    পণ্য নিয়ে জাহাজ আটকা

    যমুনায় বাড়ছে পানি, তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চলের ফসলি জমি

    শত মিটারের যত ভোগান্তি

    দোকানে দখল আশ্রয়ণের জমি

    বৃদ্ধকে শিকলে বেঁধে ঘরবন্দী, গ্রেপ্তার ২

    বোরো ধানে লোকসানের শঙ্কা

    নেত্রকোনায় কুপিয়ে জখম করা সেই স্কুলছাত্রীর বিরুদ্ধে পাল্টা মামলা

    ‘কমলগঞ্জে ছাত্রলীগের কর্মীর চেয়ে সিভি নেতা বেশি’

    মানিকগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি

    কুসিক নির্বাচন সুষ্ঠ করতে রিটানিং কর্মকর্তার নিকট স্বতন্ত্র প্রার্থীর ৭ প্রস্তবনা

    কানে স্বর্ণপামের দৌড়ে এগিয়ে যে সিনেমা

    ধর্ষণ মামলায় আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ১০ হাজার টাকা জরিমানা