কোনাবাড়ীতে কোরবানির পশুর হাট জমতে শুরু করেছে। তবে বৃষ্টিতে গরু ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের কিছুটা ভোগান্তি হচ্ছে। বৃষ্টিতে হাটে পানি জমে গরুর রোগবালাই নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন ব্যবসায়ীরা। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোনাবাড়ী থানায় ৩টি কোরবানি পশুর হাট বসছে।

এদিকে দাম গত বছরের তুলনায় কিছু কম হওয়ায় ক্রেতাদের মনে আনন্দ বয়ে চলছে । শুক্রবারে হাট পরিদর্শন করে দেখা যায় ক্রেতাদের ভিড়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামী সোমবার কোরবানির ঈদ। ঈদে পশু কোরবানি দিতেই বড় বড় গরুর হাটগুলোতে এখনও ক্রেতাদের ভিড়ে সরগরম হয়ে উঠেনি। হাটগুলোতে বড় এবং মাঝারি সাইজের দেশি গরুর খোঁজ বেশি থাকলেও বৃষ্টির জন্য ক্রেতাদের ভোগান্তি হচ্ছে।

এছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় কাঁদায় স্যাঁতস্যাঁতে অবস্থা। যেখানে হেঁটে চলাচল করাটাই দুরূহ হয়ে পড়েছে। বৃষ্টির কারণে হাটে ক্রেতা কম থাকায় ভেজা গরু নিয়ে মলিন মুখে দেখা গেছে একাধিক ব্যবসায়ীকে।

এ বিষয়ে হাটের ইজারাদারের পক্ষ থেকে জানাজায়, বৃষ্টিতে হাটে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়েই বিড়ম্বনায় পড়েছে। এছাড়া নিরাপত্তাসহ অন্যান্য সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে কোন স্থানে পানি জমে থাকছে না।

তিনি বলেন, আমাদের উদ্যোগে পলিথিন দিয়ে ব্যবসায়ীদের হাটে রাখার চেষ্টা করছি। আমাদের হাট কমিটির পক্ষ থেকে সকল ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে।

পিবিএল এগ্রো লি:এর পরিচালক ছাবের হোসেন সুমন জানান, কোনাবাড়ী নতুন বাজারে পশুর হাটে বিপুল সংখ্যক গরু ছাগল উঠেছে। ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড় একটু কম আছে আশা করি সামনের দিনগুলোতে বিক্রি হয়তো ভালো হবে।

গত বছরের তুলনায় এবার গরু-ছাগলের দাম কম।এ হাটে সর্বোচ্চ পাচঁ লাখ টাকায় কোরবানির গরু পাওয়া যাচ্ছে।

দামের ক্ষেত্রে একই অবস্থা আমবাগ নজর দিঘি স্কুল মাঠের গরুর হাট, জরুন এলাকায় (সাবেক পুলিশ ফাঁড়ির সামনে) গরুর হাটে।

হাটে আগত কয়েক ক্রেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পশু খাদ্যের দাম ও পরিবহন ভাড়া বৃদ্ধির কথা। এদিকে বিক্রেতারা বলছেন পশু খাদ্যের দাম বেশি, তাই বাধ্য হয়েই গরুর দাম বাড়তেও পারে।

গরুরহাটে গিয়ে দেখা গেছে, দেশিয় গরুর সমারোহ। গ্রাম-গঞ্জের বিভিন্ন এলাকা থেকে বিক্রির জন্য বড় ও মাঝারি সাইজের গরু নিয়ে হাটে এসেছেন।

অভিযোগ উঠেছে, মোটাতাজাকরণ করে হাটে আনা হয়েছে অধিকাংশ গরু।

কোনাবাড়ী থানার পরিদর্শক অপারেশন রাফিউল রাফি জানান, হাটে নিবিগ্নে ক্রেতা ও বিক্রেতারা যাতে সহজেই কেনা-বেচা করতে পারেন সে জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মো.শহিদুল ইসলাম/গাজীপুর