Alexa
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

প্রাগৈতিহাসিক মানবসভ্যতার নিদর্শন আবিষ্কারের বছর 

আপডেট : ২৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬:১৮

চীনে পাওয়া ড্রাগনম্যান। ছবি: রয়টার্স  চলতি ২০২১ সালে মানুষের বিবর্তন ও প্রাগৈতিহাসিক মানবসভ্যতার নিদর্শন আবিষ্কারের নতুন অধ্যায় উন্মোচিত হয়েছে। দাঁত, হাড় এবং গুহার ধুলোতে সংরক্ষিত প্রাচীন ডিএনএ বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা হাজার হাজার বছরের পুরোনো এসব তথ্য বের করেছেন। আধুনিক মানুষের আগের নতুন প্রজাতির আবিষ্কার বিবর্তনের জানা ইতিহাস নতুন করে নির্মাণের তাগিদ তৈরি হয়েছে। প্রাগৈতিহাসিক যুগে মানুষের পূর্বপুরুষদের খাদ্য ও ফ্যাশন সম্পর্কে ইঙ্গিত মিলছে।

চলতি বছর আবিষ্কার হওয়া এমন কিছু নিদর্শন: 

আমেরিকার প্রথম মানুষ
আমেরিকায় কবে নাগাদ প্রথম মানুষ পৌঁছেছিল, তা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিতর্ক চলছে। মহাদেশটিতে পাওয়া পাথরের বিভিন্ন উপাদান দেখে ১৬ হাজার বছরেরও আগে মানুষ সেখানে যায় বলে একদল গবেষক দাবি করে আসছেন। 

তবে এ নিয়ে বরাবরই সন্দেহ পোষণ করে আসছেন বেশ কয়েকজন গবেষক। সম্প্রতি বিজ্ঞানীদের এক আবিষ্কার আগের গবেষকদের দাবিকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। 

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ২৩ হাজার ও ২১ হাজার বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ মেক্সিকো অঙ্গরাজ্যে মানুষের বেশ কয়েকটি পায়ের ছাপ আবিষ্কার করেছেন যুক্তরাজ্যের একদল বিজ্ঞানী। অন্য মহাদেশ থেকে ওই সময় উত্তর আমেরিকায় ব্যাপক হারে মানুষজন আসে, যেটি সম্পর্কে এখনো জানা যায়নি। 

পাথরে আঁকা বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন গল্প। ছবি: টুইটার  ড্রাগনম্যান
উত্তর-পূর্ব চীনের হারবিন শহরে একটি খুলি পাওয়া গেছে ১৯৩৩ সালে। তবে খুব সম্প্রতি এটি বিজ্ঞানীদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে।। যা সম্পূর্ণ নতুন প্রজাতির মানবের বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

বিজ্ঞানীদের এই দলটি দাবি করছে, মানব বিবর্তন প্রক্রিয়ায় নিয়ান্ডারথাল এবং হোমো ইরেকটাসের মতো এই প্রজাতির মানব আধুনিক মানুষের (হোমো সেপিয়েন্স) নিকটতম আত্মীয়। 

এই মানব প্রজাতির নাম দেওয়া হয়েছে ‘ড্রাগন ম্যান’। 

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই নমুনাটি এমন এক মানবগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করছে যারা অন্তত ১ লাখ ৪৬ হাজার বছর আগে পূর্ব এশিয়ায় বসবাস করত। তাদের বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে, এই প্রজাতির মানব নিয়ান্ডারথালের চেয়েও হোমো সেপিয়েন্সের অনেক বেশি ঘনিষ্ঠ। 

গবেষকেরা বলছেন, এই নতুন প্রজাতির মানব হচ্ছে হোমো লোঙ্গি। এই লোঙ্গি শব্দটি এসেছে চীনা শব্দ ‘লং’ থেকে, যার অর্থ ড্রাগন।

চায়নিজ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস এবং শিজিয়াঝুয়াঙ প্রদেশে হেবেই জিও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জিজুন নি বলেন, ‘এই আবিষ্কারের মাধ্যমে আমরা বহু আগে হারিয়ে যাওয়া এক বংশধরকে আমরা খুঁজে পেয়েছি।’

শত শত বছর ধরে প্রত্নতাত্ত্বিকেরা গুহাগুলোতে প্রাচীন মানুষের দাঁত, হাড় ও হাতিয়ারের সন্ধান করছে। 

নিয়ান্ডারথাল মস্তিষ্ক
প্রাগৈতিহাসিক মানবপ্রজাতির মস্তিষ্কের কোনো তথ্য জীবাশ্মে ভালোভাবে সুরক্ষিত থাকে না। যার ফলে আধুনিক মানুষের মস্তিষ্ক আমাদের দীর্ঘদিন আগে বিলুপ্ত পূর্বপুরুষ নিয়ান্ডারথালদের থেকে কীভাবে আলাদা তা জানা অসম্ভব। 

তাদের মাথার খুলি দেখে বোঝা যায় যে, তাদের মস্তিষ্ক আমাদের চেয়ে বড় ছিল। তবে তাদের স্নায়ুর গঠন এবং বিকাশ সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যায়নি। 

তবে এই সমস্যার সমাধান নিয়ে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব সান দিয়েগোর বিজ্ঞানীরা। তাঁরা জেনেটিক্যালি মডিফায়েড ব্রেইন টিস্যু তৈরি করেছেন যেটি নিয়ান্ডারথাল এবং অন্যান্য প্রাচীন হোমিনিনদের (আধুনিক মানুষের পূর্ব পুরুষ) জিন বহন করে। যদিও গবেষণাটি খুব প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। গবেষকেরা এই গবেষণায় দেখেছেন, নিয়ান্ডারথালদের জিন বহনকারী মস্তিষ্কের অংশগুলো মস্তিষ্কের গঠনে কীভাবে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনে। 

বাঁ থেকে নিয়ান্ডারথালের মস্তিষ্কের অর্গানয়েড ও ডানে মানুষের মস্তিষ্কের অর্গানয়েড়। ছবি: টুইটার বিশ্বের প্রাচীনতম গল্প
চলতি বছরের জানুয়ারিতে মানুষের হাতে বানানো প্রাচীনতম ছবির গল্প আবিষ্কৃত হয়। পাথরের গায়ে ছবি এঁকে গল্প বলার চেষ্টা করা হয়েছে। এটি পাওয়া গেছে ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসিতে। এটিই প্রাচীনতম পোর্ট্রেট বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এটি কমপক্ষে ৪৫ হাজার বছরের পুরোনো। ওই পাথরের গায়ে তিনটি শূকরের ছবি আঁকা রয়েছে। শূকরগুলোর অবস্থান দেখে মনে হয়, দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দুই সাথির মারামারি দেখছে একটি শূকর। বলা হচ্ছে, প্রাচীন মানুষেরা পাথরে এসব চিত্র এঁকেছে। এভাবে গল্প বলার চেষ্টা করেছেন তাঁরা।

প্রাচীন ফ্যাশন
চলতি বছর প্রত্নতাত্ত্বিক প্রমাণ আমাদের প্রস্তর যুগের পূর্বপুরুষেরা আসলে কী পরতেন এবং কীভাবে কাপড় তৈরি করতেন সে সম্পর্কে ধারণা দিয়েছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, পশম, চামড়া এবং অন্যান্য জৈব পদার্থ সাধারণত সংরক্ষিত থাকে না। বিশেষ করে যেগুলো ১ লাখ বছর আগের, সেগুলোর ব্যাপারে ধারণা পাওয়া কঠিন হয়ে যায়। তবে গবেষকেরা বলছেন, ৬২টি হাড়ের তৈরি সরঞ্জাম পাওয়া গেছে মরক্কোর একটি গুহায়। এগুলো দিয়ে পশুর চামড়া ঘষে কাপড় তৈরি করতেন প্রাচীন যুগের মানুষ। ওই যন্ত্রগুলো ৯০ হাজার থেকে ১ লাখ ২০ হাজার বছরের পুরোনো। একই ধরনের কৌশল আজও চামড়া প্রক্রিয়ার কাজে ব্যবহার করা হয়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ক্যানসার কোষের সম্পূর্ণ জিনোম সিকোয়েন্স আবিষ্কার

    ধেয়ে আসছে কুতুব মিনারের চেয়ে সাড়ে ৩ গুণ বড় গ্রহাণু

    মস্তিষ্কে মাইক্রোচিপ প্রতিস্থাপন, ‘সম্পূর্ণ বাক্যে’ যোগাযোগ করতে পারবেন পক্ষাঘাতগ্রস্ত ব্যক্তিরা

    পাটিগণিত করার জন্য মস্তিষ্কে রয়েছে নির্দিষ্ট এলাকা

    ১০ কোটি রং দেখতে পান যিনি তাঁর চোখে পৃথিবী কেমন?

    মঙ্গল গ্রহে প্রাণের প্রমাণ পেল নাসার রোবট

    মুশফিকের ভেলায় ৪০০-এর স্বপ্ন বাংলাদেশের

    বেকারি পণ্যের মূল্য দ্বিগুণ

    জনগণ বারবার বিএপিকে টেনে–হিঁচড়ে ক্ষমতাচ্যুত করেছে, বললেন কাদের

    টিভিতে আজকের খেলা (২৪ মে ২০২২, মঙ্গলবার)

    আগৈলঝাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী নিহত, স্বামী আহত

    ‘বাংলাদেশে মাঙ্কিপক্সের কোনো রোগী ধরা পড়েনি’