মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

দ্বিতীয় দিনেও চলছে কোরবানি

আপডেট : ২২ জুলাই ২০২১, ১৬:৫৮

ব্যবসার কাজের চাপে ঈদের দিন কোরবানি দিতে পারেননি রাজধানীর বনশ্রীর বাসিন্দা রূহুল আমিন (৬০)। তাই, দ্বিতীয় দিনে আজ কোরবানি দিচ্ছেন তিনি।

মালিবাগের হেলাল উদ্দিনও (৫৪) প্রথম দিন অনেক চাপ থাকায় কোরবানি করেননি। তাই, দ্বিতীয় দিনে কোরবানি দিচ্ছেন। প্রায় প্রতি বছরই তিনি ঈদের পরদিন কোরবানি দিয়ে থাকেন বলে জানান।

শুধু তাঁরা নন আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ঘুরে অলি–গলিতে অনেককেই পশু কোরবানি দিতে দেখা গেছে। নানা ঝামেলার কারণে যারা গতকাল পারেননি, তাঁরা আজ দিচ্ছেন। এ ছাড়া আগামীকাল থেকে কঠোর লকডাউনের কথা শুনে অনেকে তৃতীয় দিনে কোরবানি দেওয়ার ইচ্ছা করলেও আজই দিচ্ছেন।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বড় একটি অংশ পুরান ঢাকা। যেখানে ঈদের দ্বিতীয় দিনে পশু কোরবানি অনেকটা ঐতিহ্যের মতো। বাড়তি ঝামেলা এড়াতে ও কসাই পাওয়া নিয়ে জটিলতায় দ্বিতীয় দিন কোরবানি দিয়ে থাকেন স্থানীয়রা।

মালিবাগ চৌধুরীপাড়ার বাসিন্দা মোসলেম উদ্দিন আজকের পত্রিকাকে বলেন, ঈদের দিন কসাই পাওয়া অনেক কষ্ট। এ ছাড়া আত্মীয়–স্বজনদের একটু চাপ থাকে। তাই, আগের বছরগুলোর ন্যায় এবার দ্বিতীয় দিন কোরবানি দিচ্ছি।

ঈদে পশু জবাই করতে ব্যস্ত সময় কাটে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের। খিলগাঁওয়ের জামিয়া ইসলামিয়া মাখজানুল উলূম মাদ্রাসার শিক্ষার্থী হাফেজ আব্দুল্লাহ আল মামুন আজকের পত্রিকাকে বলেন, গতকাল ঈদের দিন পশু কোরবানির অনেক চাপ ছিল। এদিন ১৪টি গরু জবাই করেছি। গতকালের চেয়ে চাপ কম হলেও মোটামুটি অনেক জায়গায় পশু জবাই হচ্ছে।
পশু জবাইয়ের অনেক স্থানে গরিব অসহায়দের ভিড়ও লক্ষ্য করা গেছে। ঈদের দিন অনেকে ৫ থেকে ১৫ কেজি মাংস সংগ্রহ করেছেন। কিন্তু সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় বিক্রি করেছেন।

গতকালের ন্যায় আজও বনশ্রী এলাকায় মাংস সংগ্রহের চেষ্টায় নেমেছেন বিলকিস আক্তার। সকাল থেকে দুই জায়গায় গিয়েছেন তিনি।

আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, ঈদের দিন সারা দিন ঘুরে ৬ কেজির মতো গোশত পাইছি। বেশির ভাগই বেইচা দিছি। বাকিগুলো ছেলে–মেয়ে নিয়ে খাইছি। কিন্তু আজ ভিড় বেশি।

এদিকে দ্বিতীয় দিনেও বর্জ্য অপসারণ করতে মাঠে নেমেছে সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা। কিছু স্থানে বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেলেও অধিকাংশ স্থানেই নির্দিষ্ট সময়ে বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে।

সিপাহিবাগের পরিচ্ছন্নতাকর্মী রায়হান বলেন, বৃষ্টি না হওয়ায় অনেক ভালো হয়েছে। দ্রুত বর্জ্য অপসারণ করা গেছে। যেখানেই পশু জবাই হচ্ছে দ্রুত বর্জ্য অপসারণ করা হচ্ছে। অনেকে নিজ উদ্যোগে বর্জ্য নির্দিষ্ট স্থানে দিয়ে যাওয়ায় সুবিধা হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    আবাসিক এলাকায় গ্যাস সংযোগ দিতে রুল

    টার্গেট বিমানবন্দর থেকে হলেও অস্ত্র ঠেকায় রাস্তায়

    বংশালে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

    হিজড়াদের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ৯ 

    বেডের জন্য হাহাকার শিশু হাসপাতালে

    ‘স্পিড মানি’র গতি

    স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গুপ্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন

    ছানার পুডিং

    অভিনয়ের নেশা

    স্থাপনাটি পুকুরের মাঝখানে

    ১৫ বছর ধরে দাঁড়িয়ে আছে সেতুর পিলার