শুক্রবার, ০৬ আগস্ট ২০২১

সেকশন

 

ফরিদপুরে ২২ দিনে করোনায় ২৪৪ জনের মৃত্যু

প্রকাশ : আপডেট : ২২ জুলাই ২০২১, ১৩:১৯

করোনায় ১১১ এবং উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ১৩৩ জন। ছবি: আজকের পত্রিকা করোনাভাইরাস মহামারিতে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ২২ দিনে ২৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনায় ১১১ এবং উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ১৩৩ জন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন আরও ১৯ ব্যক্তি।

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. সাইফুর রহমান বলেন, গত ১ জুলাই থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত করোনা এবং উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রাণহানি হয়েছে ২৪৪ জনের। যারা মারা গেছেন তাঁরা ফরিদপুর, রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, মাগুরা জেলা থেকে এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছিল।

সাইফুর রহমান বলেন, দূরদূরান্ত থেকে যে রোগী গুলো আসে তাঁদের শারীরিক অবস্থা একেবারে খারাপ নিয়ে আসে। যে কারণে তাঁদের মধ্যেই মৃত্যুর হার বেশি। করোনার এই দুর্যোগে আমরা প্রত্যেক রোগীকে সাধ্যমতো সেবা দিয়ে যাচ্ছি। আমাদের চেষ্টার ঘাটতি নেই কোথাও।

পরিচালক আরও বলেন, ২২ দিনের মধ্যে সব থেকে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে ১৭ জুলাই। এই দিন মারা গেছে ২১ জন। এ ছাড়া ২০ ও ২২ জুলাই ১৯ জন করে মারা গেছেন। বর্তমানে ৫১৬ শয্যার এই মেডিকেল কলেজে পুরোটাই করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সোমবার (২২ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ৩০৬ জন ভর্তি রোগী রয়েছেন। এর মধ্যে আইসিইউয়ে রয়েছেন ১৬ জন।

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) ফরিদপুর শাখার সভাপতি ডা. আ স ম জাহাঙ্গীর চৌধুরী টিটো বলেন, এই ভেরিয়েন্টাটা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। আক্রান্ত ব্যক্তি অল্প সময়েই খারাপ দিকে চলে যাচ্ছেন আর এ জন্য মৃত্যু বাড়ছে।

তিনি বলেন, কোন ব্যক্তি শরীরে সামান্য জ্বর, ঠান্ডা বা অন্য কোনো সমস্যা হলেই দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এ ছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকলকেই চলতে হবে।

ফরিদপুর জেলার করোনা আক্রান্ত বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. ছিদ্দীকুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ২৮২ নমুনা পরীক্ষায় নতুন শনাক্ত হয়েছে ৯০ জন। শতকরা হারে যা ৩৪.৫৭ ভাগ। এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১৬ হাজার ৪৭৪ ব্যক্তি, সুস্থ হয়েছেন ১২ হাজার ৯৮৭ জন। ফরিদপুর জেলায় এ পর্যন্ত মোট মারা গেছেন ৩৪১ জন।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, করোনার এই দুর্যোগে সকলকেই স্বাস্থ্যবিধির মধ্যে আসতে হবে। শুধু আইন প্রয়োগ করে নয়, করোনা যুদ্ধে সকল শ্রেণি মানুষের সহযোগিতা দরকার।

তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করছি জেলার হাট-বাজার, বিপণি-বিতানসহ জনবহুল স্থানে মানুষকে সচেতন করতে এবং স্বাস্থ্যবিধির মধ্যে আনতে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    কাল দেশে আসছে ভারতের দেওয়া ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স

    কাল দেশে আসছে ভারতের দেওয়া ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স

    টেকনাফে দেশীয় অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক গ্রেপ্তার

    টেকনাফে দেশীয় অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক গ্রেপ্তার

    রাতে ঢাকার মহাসড়কে বাস-পিকআপে যাত্রী পরিবহন

    রাতে ঢাকার মহাসড়কে বাস-পিকআপে যাত্রী পরিবহন

    আদালতকক্ষে পরীমণি ছিলেন নিশ্চুপ ও হতাশাগ্রস্ত

    আদালতকক্ষে পরীমণি ছিলেন নিশ্চুপ ও হতাশাগ্রস্ত

    কাল দেশে আসছে ভারতের দেওয়া ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স

    কাল দেশে আসছে ভারতের দেওয়া ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স

    টেকনাফে দেশীয় অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক গ্রেপ্তার

    টেকনাফে দেশীয় অস্ত্রসহ রোহিঙ্গা যুবক গ্রেপ্তার

    মেসির পরবর্তী গন্তব্য কোথায় 

    মেসির পরবর্তী গন্তব্য কোথায় 

    মেসিকে কেন রাখতে পারল না বার্সা 

    মেসিকে কেন রাখতে পারল না বার্সা 

    ভেঙেই গেল মেসি-বার্সা জুটি

    ভেঙেই গেল মেসি-বার্সা জুটি

    অস্ত্রনীতি ঢেলে সাজাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

    অস্ত্রনীতি ঢেলে সাজাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র