এ বছরের প্রথম ৯ মাসে গ্রামীণফোন ১০ হাজার ৭৫০ কেটি টাকা আয় করেছে। অপারেটরটির গ্রাহক সংখ্যা ৬ শতাংশ বেড়ে বছরের প্রথম ৯ মাস শেষে দাঁড়িয়েছে ৭ কোটি ৫৭ লাখে।

এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) প্রতিষ্ঠানটি ৪ লাখ নতুন গ্রাহক নেটওয়ার্কে সংযুক্ত করেছে যা ২০১৮ সালের শেষ প্রান্তিক থেকে ৬ শতাংশ বেশি। এ সময়ে প্রতিষ্ঠানটির ইন্টারনেট গ্রাহক বৃদ্ধি পেয়েছে ৯ লাখ। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির ৫৩ দশমিক ৭ শতাংশ গ্রাহক ইন্টারনেট সেবা ব্যবহার করছেন।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী মাইকেল প্যাট্রিক ফোলি বলেন, প্রতিকূল নিয়ন্ত্রকমূলক পরিবেশ থাকা সত্ত্বেও আমরা তৃতীয় প্রান্তিকে শক্তিশালী ব্যবসায়িক ফলাফল অর্জন করেছি। নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে নিয়ন্ত্রক সংস্থার এনওসি প্রদান বন্ধের কারণে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও গ্রামীণফোন দেশের ৯৯ দশমিক ৫ শতাংশ গ্রাহককে তার নেটওয়ার্কে আওতায় মোবাইল সেবা প্রদান করছে।

গ্রামীণফোন থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ মার্জিনসহ তৃতীয় প্রান্তিকে কর পরবর্তী নীট মুনাফা ছিল ৭৩০ কোটি টাকা। এই সময়কালে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ৫ দশমিক ৩৮ টাকা।