শুভেন্দু মাইতি। ছবি: কৃষ্টি

শিক্ষা, গণমাধ্যম ও গণসংস্কৃতি নিয়ে কাজের উদ্দেশ্যে সৃষ্ট সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন কৃষ্টির প্রথম আয়োজন বাংলা গানের পরম্পরা।

২৭ জুলাই ধানমন্ডি ছায়ানট মিলনায়তনে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়েছে। বেলা ৪টা- ৬টা পর্যন্ত গান গল্প এবং সন্ধ্যা ৭টায় নিজের গান গাইবেন ‘মাঈনুদ্দিন কেমন আছো’ খ্যাত ৭৫ বছরের শুভেন্দু মাইতি।

অনুষ্ঠান শুরুর আগে বেলা ৪টায় গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে কথা বলবেন শুভেন্দু মাইতি। গণমাধ্যমের কাছে জানাবেন নিজের চিন্তা দর্শনের আদ্যেপান্ত।

সঙ্গীত গুরু শুভেন্দু মাইতি জন্মেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামে, ভারতে।  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে, গত শতকে। শৈশবে প্রিয় গুরু বলেছিলেন, ‘গান বিকোবি না’।  যা মেনে চলেছেন আজ অবধি। মানুষ এবং সঙ্গীতকে ভালোবেসে তিনি গণসঙ্গীতের প্রেমে পড়েন।  জড়িয়ে পড়েন রাজনীতিতেও।  ষাটের দশকে তিনি কলকাতা নগরে আসেন উচ্চতর শিক্ষা নিতে। কিন্তু আবারও প্রেমে পড়েন তিনি।  কিন্তু এবার কবিতার।  প্রিয় হয়ে ওঠেন কবিতাপ্রেমীদের।  আর রাজনৈতিক কারণে তাঁকে গণসঙ্গীত নিয়ে ছুটে বেড়াতে হয় পুরো রাজ্যে।  হাজার হাজার শ্রোতা সেই গানে হন অনুপ্রাণিত।  নব্বুই দশকের শুরুতে দলের সঙ্গে মতবিরোধের কারণে দলীয় রাজনীতি থেকে দূরে সরে আসেন।  কিন্তু ভোলেননা বাম রাজনীতিরগণমানুষের দীক্ষা।

নজর দিতে শুরু করেন নতুন বাংলা গানে।  সুমন চট্টোপাধ্যায়, নচিকেতা প্রমুখ শিল্পীকে হাত ধরে নিয়ে আসেন নাগরিক শ্রোতাদের সামনে।  তাঁর ব্রত হয়ে ওঠে নতুন সঙ্গীতশিল্পীদের দীক্ষা।  এখনও সেই লক্ষ্যে অটল তিনি। ২০০৬ সালে গড়ে তোলেন লালন একাডেমী। যে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে গড়েছেন বাংলা গানের আর্কাইভ।

আজকের পত্রিকা/এমইউ