প্রায় ৩ মাস যাবত বিভিন্ন দাবি-দাওয়া জানিয়ে আসছিল অ্যাপ ভিত্তিক গাড়ি উবারের চালকরা। এরই মধ্যে তারা ৯ দফা দাবি নিয়ে ধর্মঘটেও নেমেছেন। ২৪ ঘণ্টার জন্য এই ধর্মঘট পালনের সিদ্ধান্ত নিয়ে এ সময়ের মধ্যে গাড়ি চালানো বন্ধ রেখেছেন উবার চালকরা। এ অস্থিতিশীল ঘটনার জন্য গ্রাহকদের কাছে ক্ষমা চেয়েছে উবার কর্তৃপক্ষ।

১৩ অক্টোবর রবিবার রাত ১২টা থেকে ১৪ অক্টোবর সোমবার রাত ১২টা পর্যন্ত বাংলাদেশ রাইড শেয়ারিং ড্রাইভারস অ্যাসোসিয়েশন এই ধর্মঘট ডেকেছে। জানা যায়, গত জুলাই মাস থেকে বেশ কিছু দাবি-দাওয়া জানিয়ে আসছিল রাইড শেয়ারিং ড্রাইভারস অ্যাসোসিয়েশন, উবার থেকে ঈদের আগে এগুলো সমাধানের আশ্বাস দিলেও এখনো পর্যন্ত কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি। এর ফলে এই ধর্মঘটে যেতে তারা বাধ্য হয়েছেন বলে জানালেন রাইড শেয়ারিং ড্রাইভারস অ্যাসোসিয়েশনের একজন মুখপাত্র।

রাইড শেয়ারিং ড্রাইভারস অ্যাসোসিয়েশনের ৯ দফা দাবিগুলো মধ্যে আছে-

  • উবারের ওয়েবিল অনুযায়ী যাত্রা শুরু করা থেকে শেষ পর্যন্ত মিনিট ও কিলোমিটার হিসাব করে ভাড়া দেওয়া।
  • কমিশন ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১২ শতাংশ করা।
  • গ্যাসের মূল্য বাড়ায় ভাড়া বাড়ানো।
  • চালকদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা ও যাত্রী দ্বারা গাড়ির ক্ষতি হলে ক্ষতিপূরণ দেওয়া।
  • অভিযোগ যাচাই না করে চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া।
  • উবারের অ্যাকাউন্টেও যাত্রীর ছবি বাধ্যতামূলক ও যাত্রীকে লোকেশনের ব্যাপারে প্রাথমিক ট্রেনিং দেওয়া।
  • সর্বোচ্চ দুই কিলোমিটারে মধ্যে যাত্রীর সঙ্গে চালকদের সংযোগের ব্যবস্থা।
  • চালকদের গন্তব্যের ক্ষেত্রে শতভাগ গন্তব্যের আশপাশে ট্রিপ দিতে হবে।
  • ১২ ঘণ্টার বেশি অনলাইনে না থাকার সিদ্ধান্ত বাতিল করা।

তবে ধর্মঘট চললেও রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় উবার অ্যাপে গাড়ি পাওয়া যাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে রাইড শেয়ারিং ড্রাইভারস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ৮০ ভাগ গাড়ি বন্ধ আছে, ২০ ভাগের মতো চলছে। ফেসবুক সম্পর্কে যারা জ্ঞাত নন, তারা ধর্মঘট সম্পর্কে জানেন না বলেই গাড়ি চালু রেখেছেন। এছাড়া তারা জানান, বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে উবার যদি তাদের দাবি মেনে না নেয়, তাহলে তারা পরবর্তী কর্মসূচি দেবেন।

আজকের পত্রিকা/সিফাত