হাসপাতালে ভর্তি শাহ আলম।

ভর্তি ফি ২০ টাকার জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগে দেড় ঘন্টা অপেক্ষা করিয়ে রাখা হয়। ২০ টাকা দেওয়ার পর ভর্তি করেন জরুরী বিভাগের ব্রাদার। তবে চিকিৎসা সেবার কিছুই দেওয়া হয়নি সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত পোল্ট্রি দোকানদার আব্দুস সালামকে (৩৫)।

জরুরী বিভাগের ডাক্তারকে বার বার ডাকার পরও তিনি আর ফিরে দেখেননি। এক কথায় বার বার বলেছেন রোগীকে খুলনায় নিয়ে যান। এখানে চিকিৎসা হবে না। এসব অভিযোগের কথা কথা জানান সাতক্ষীরার সদরের মাগুরা এলাকার আহত আব্দুস সালামের ছোট ভাই আলম হোসেন।

তিনি আরও জানান, শহরের মিলগেট বাজারে ছোট একটি পল্ট্রি দোকান রয়েছে বড় ভাই আব্দুস সালামের। সোমবার দুপুরে দোকানের পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন। হঠাৎ একটি প্রাইভেটকার তাকে ধাক্কা দিয়ে মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়। স্থানীয়রা তাৎক্ষণিক উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলেও চিকিৎসা দিলো না ডাক্তার। বাধ্য হয়েই রাত ৭টার দিকে চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

মিলগেট বাজার এলাকার বাসিন্দা শেখ এনামুজ্জামান নিপ্পন জানান, দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত সালামকে সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর শুরু হয় ভোগান্তি আর অবহেলা। ২০ টাকার জন্য রোগীকে দেখেনি। টানা দেড় ঘন্টা পর ঘটনাস্থলে আমি গিয়ে ২০ টাকা দিয়েছি ভর্তির জন্য। এরপর ভর্তি করে নেয়। তবে ডিউটিরত ডাক্তার ডা. আসাদুজ্জামান শিমুলকে বার বার ডেকেও রোগীর কাছে নেওয়া যায়নি।

সদর হাসপাতালের ব্রাদার ওয়াজেদ আলী বলেন, ২০ টাকার জন্য রোগীকে ভর্তি করা হয় না এ অভিযোগ সঠিক নয়। গরীব অসহায় রোগীরা হাসপাতালে আসলে তাদের বিনামূল্যে ভর্তির ব্যবস্থার নিয়ম রয়েছে। সে সময়ে আমার ডিউটি ছিলো না যার কারণে কি কারণে দেরী করা হয়েছে সেটা বলতে পারছি না।

রোগীকে চিকিৎসা না দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে সে সময়ের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডা. আসাদুজ্জামান শিমুল বলেন, রোগীর ফাইল আমি দেখেছি। রোগীর অবস্থা খুব বেশী ভালো ছিলো না। মাথায় রক্তক্ষরণ হতে পারে। যার কারণে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেলে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিলো।

তিনি আরও বলেন, পরবর্তীতে রোগীর সঙ্গে থাকা স্বজনরা জানায় তাদের টাকা নেই। কিভাবে সেখানে নিয়ে যাবো। তখন তাদের বলেছি, রোগীর অবস্থা ভালো নয়। এখানে যদি রাখেন তবে খারাপ হলে কিন্তু কিছুই করার থাকবে না। এরপর সন্ধ্যার পর তারা রোগীকে খুলনা নিয়ে গেছেন।