মিষ্টি খাওয়া ছেড়ে দিলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। ছবি : সংগৃহীত

মিষ্টি জাতীয় অনেক সুস্বাদু খাবার রয়েছে। যেসব খাবার আমাদের অনেকরই পছন্দের। কারো কারো কাছে এত বেশি পছন্দের যে তারা অতিরিক্ত মিষ্টি বা চিনি জাতীয় খাবার খেয়ে ফেলে। ফলে স্বাস্থ্যের নানা রকম ক্ষতি হয়। অনেকে হয়তো জানেই না নিয়মিত এসব মিষ্টি জাতীয় খাদ্য গ্রহণ আমাদের কত রকম ক্ষতি করতে পারে। তাই ১ মাস খাদ্য তালিকা থেকে চিনি জাতীয় খাবারগুলো বাদ দিয়ে দিন, তাহলে স্বাস্থ্যের ইতিবাচক পরিবর্তন লক্ষ করবেন। চলুন জেনে নিই, সেইসব পরিবর্তনগুলো নিয়ে-

সুস্থ দাঁত

মিষ্টি কম খেলে আপনার দাঁত ও মাড়ি আরোও শক্ত হবে। আর যদিও খান তাহলে তারপরই ব্রাশ করে নিন।

ত্বক

চিনি খাওয়া ছেড়ে দিলে আপনার ত্বক আরো সুন্দর হয়ে যাবে, ত্বকের উপর গর্ত থাকলে তা বন্ধ হয়ে যাবে। আর ত্বক মসৃণ হবে।

স্মৃতিশক্তি

মিষ্টি কম খেলে স্মৃতিশক্তি বাড়ে আর কথা মনেও থাকে। অন্যদের সাথে কথা বলার ভঙ্গিও বদলায়। আর অন্যের কথা সহজে বুঝতেও পারবেন।

হার্টের অবস্থা

হার্ট আমাদের সবচেয়ে সংবেদনশীল অংশ, তাই তার পরিচর্যা করা বেশি আবশ্যক। তাই চিনি খাওয়া কমানো জরুরী।

বার্ধক্য থেকে মুক্তি

বেশি মিষ্টি খেলে ত্বকের চামড়া ঝুলে যায় আর তাতে আরোও বয়স্ক লাগে। আর যারা খায় না তাদের বয়সের ছাপ কম পড়ে।

হাঁটুর ব্যথা

যদি আপনার হাঁটুর ব্যথা হয় তাহলে চিনি খাওয়া ছেড়ে দিন তফাৎ দেখতে পাবেন।

রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা

মিষ্টি খাওয়া ছেড়ে দিলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। আপনি নিজেই ছেড়ে দেখুন তাহলে পার্থক্য বুঝবেন ।

ঘুমের পরিপূর্ণতা

যে রাতে আপনি মিষ্টি বেশি খান সেই রাতে ঘুমও দেরিতে আসে। এমনকি এতে না ঘুম হওয়ার রোগ হয়ে যায়। এই কারণেই মিষ্টি খাওয়ার থেকে বাঁচা দরকার।

সুস্থ লিভার

মিষ্টি খাওয়া ছেড়ে দিলে শুধু খাবার তাড়াতাড়ি হজমই হবে না বরং সুস্থও থাকবেন।

ডাইবেটিস থেকে মুক্তি

এটি এমন একটা রোগ যা প্রতিরোধ করতে হলে সুগার লেভেল কম করতে হয়। যদি মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছা হয় তাহলে ড্রাই ফুড খেয়ে ক্ষুধা মেটাতে পারেন।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/