বেরোবিতে সংবদ সম্মেলন।

নিয়োগ শর্তানুযায়ী উপাচার্যকে সার্বক্ষনিক ক্যাম্পাসে অবস্থান করা, শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে সেশনজট নিরসনসহ ১৭ দফা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার বেলা ১১টায় ক্যাফেটেরিয়ায় ‘সাধারণ শিক্ষার্থী পরিষদ’ এর ব্যানারে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের আহবায়ক রোকন-উজ-জামান রবিউল।

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো, বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্রুত কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের নির্বাচন আয়োজন করা, শিক্ষক ও কর্মকর্তা নিয়োগে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া, একাডেমিক ভবন নির্মাণ করে ক্লাসরুম সংকট নিরসন ও বিভিন্ন বিভাগের প্রয়োজনীয় উপকরণ নিশ্চিত করা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বেগম রোকেয়ার প্রতিকৃতি স্থাপন, নতুন হল নির্মাণ করে আবাসিক সংকট নিরসন ও হলের ফি কমানো এবং হলে খাবারে ভর্তুকি প্রদান, ভর্তিফরম পূরণ ও সনদ-নম্বরপত্র উত্তোলনের ফি কমিয়ে আনা, ড. ওয়াজেদ রিসার্স ইনস্টিটিউট, শেখ হাসিনা হল, স্বাধীনতা স্মারক ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা, কেন্দ্রীয় মসজিদ সম্প্রসারণ, অন্যান্য ধর্মের উপাসানালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক নির্মাণ করা, পরিবহন সংখ্যা বৃদ্ধি করে রুট বাড়ানো, মেডিকেল সেন্টার পূর্ণাঙ্গভাবে নির্মাণ করে সপ্তাহে ৭দিন ২৪ ঘন্টা সেবা নিশ্চিত করা, নতুন বিভাগ অন্তর্ভুক্তিকরণ, বিভাগের সেমিনার ও কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিতে বই সংখ্যা বাড়ানো এবং লাইব্রেরী সপ্তাহে ৭দিনই সকাল ৯টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত খোলা রাখা, স্থায়ী ব্যাংক স্থাপন, টিএসসি ও অডিটরিয়াম নির্মাণ, ক্যাম্পাসে মাদকরোধ ও সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা ও সহশিক্ষা কার্যক্রমের প্রসার ঘটানো।

এ ব্যাপারে রোকন-উজ-জামান রবিউল বলেন, যে কয়টি দাবি তুলে ধরা হয়েছে সেগুলো বেরোবি শিক্ষার্থীদের প্রাণের দাবি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন খুব দ্রুত এই যৌক্তিক দাবিগুলো মেনে নিবেন বলে আমরা আশা ব্যক্ত করছি। আর, দাবিগুলো বাস্তবায়িত না হলে পরবর্তীতে আরও কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে সমাবেশ করার ঘোষণাও দেয়া হয়েছে। রবিবারের ওই সমাবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে অংশগ্রহণের আহবান জানিয়েছেন সংগঠনের সদস্য সচিব শাকিল।

সার্বিক বিষয়ে জানতে উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ ও রেজিস্ট্রার আবু হেনা মোস্তফা কামালের মুঠোফোনে কল দেয়া হলে তারা কেউ ফোন রিসিভ করেননি।

জাকির হোসাইন, বেরোবি