বিএসটিআই’র একটি দল সায়েদাবাদ, উত্তর যাত্রাবাড়ি, ডেমরা রোড, মীর হাজিরবাগ ও শ্যামপুর এলাকায় আজ একটি সার্ভিল্যান্স অভিযান পরিচালনা করে। ছবি: সংগৃহীত

১২০০ পানির জার ধ্বংসসহ ৬টি প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন বন্ধ। বিএসটিআইয়ের একটি দল সায়েদাবাদ, উত্তর যাত্রাবাড়ি, ডেমরা রোড, মীর হাজিরবাগ ও শ্যামপুর এলাকায় একটি সার্ভিল্যান্স অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে বিএসটিআইয়ের লাইসেন্স ব্যতিরেকে ড্রিংকিংওয়াটার বিক্রি/বিতরণ করার কারণে সায়েদাবাদের বিক্রমপুর ড্রিংকিংওয়াটার, যাত্রাবাড়ির এস.টি ড্রিংকিং ওয়াটার, উত্তর যাত্রাবাড়ির এনার্জি ড্রিংকিং ওয়াটার, শ্যামপুরের সতেজ ড্রিংকিংওয়াটার ও মা এন্টারপ্রাইজের নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর জার ধ্বংসসহ পানির উৎপাদন বন্ধ করে দেয়া হয়। একই এলাকার হোটেল ও রেস্তোরাঁ অভিযান পরিচালনা করে ১,২০০ পানির জার ধ্বংস করা হয়। এছাড়া যাত্রাবাড়ির সুপারমর্নিং ব্রেড অ্যান্ড বিস্কুট ফ্যাক্টরির বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়েরের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

ওজন ও পরিমাপে কারচুপির অপরাধে রাজধানীর ২ টি পেট্রোল পাম্পের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই)। সোমবার রাজধানীর তেজগাঁও ও কল্যাণপুর এলাকায় বিএসটিআইয়ের সার্ভিল্যান্স টিমের মাধ্যমে ‘ওজন ও পরিমাপ মানদণ্ড আইন-২০১৮’ লঙ্ঘন করায় এ মামলা দায়ের করা হয়। অভিযুক্ত ২টি পাম্পের মধ্যে এলেনবাড়ী এলাকার মেসার্স ট্রাস্ট ফিলিং স্টেশনের ১০টি অকটেন ও একটি ডিজেল ইউনিট পরিমাপে কম প্রদান এবং মেসার্স সিটি ফিলিং স্টেশনের ডিজেল ইউনিটে পরিমাপে বেশি প্রদান করায় ওজন ও পরিমাপ মানদণ্ড আইন লঙ্ঘিত হওয়ায় প্রতিষ্ঠান ২টির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। এছাড়াও রাজধানীর কল্যাণপুর ও দারুসসালাম এলাকার মেসার্স খালেক সার্ভিস স্টেশন ও মেসার্স সোহরাব সার্ভিস স্টেশন পরিদর্শনকালে পরিমাপে সঠিক প্রদান করায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

বিএসটিআইয়ের অভিযানে সংস্থাটির পরিচালক (মেট্রোলজি) মো. আনোয়ার হোসেন মোল্লা ও উপ-পরিচালক (মেট্রোলজি) মো. রেজাউল হক, উপ-পরিচালক (সিএম) গোলাম বাকীসহ মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তরা অংশগ্রহণ করেন।