এ ফাঁসি কার্যকর হলে সৌদি আরবের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী কারো মৃতুদণ্ড কার্যকর হবে। ছবি: সংগৃহীত

বিপ্লবী ক্ষুদিরামের কথা মনে আছে নিশ্চয়? ভারতে বৃটিশ শাসনের তীব্র বিরোধিতা করে যাকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে হয়েছিল। ১৯০৮ সালে ফাঁসি হওয়ার সময় ক্ষুদিরামের বয়স ছিল ১৮ বছর, ৭ মাস এবং ১১ দিন, যেটা তাঁকে ভারতের কনিষ্ঠতম বিপ্লবীতে পরিণত করেছিল।

১১১ বছর পর বিশ্ববাসী দেখছে আরব বসন্তের ক্ষুদিরামকে। রাষ্ট্রদ্রোহের অপরাধে সৌদিতে ফাঁসি হতে চলেছে মুর্তাজা কুরেইরিস নামের এই তরুণের। বর্তমানে সৌদি কারাগারে রাজনৈতিক বন্দী হিসেবে তাকে রাখা হয়েছে। এ ফাঁসি কার্যকর হলে সৌদি আরবের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী কারো মৃতুদণ্ড কার্যকর হবে।

কিন্তু কী ছিল মুর্তাজার অপরাধ? ২০১১ সালে আরব বসন্তে উত্তাল হয়ে উঠেছিল কয়েকটি দেশ। সৌদি রাজতন্ত্রের নিপীড়ন-নির্যাতনের বিরুদ্ধে এবং গণতন্ত্রের দাবিতে ওই সময় দেশজুড়ে বিক্ষোভের সূচনা হয়। এরই অংশ হিসেবে মুর্তাজা কুরেইরিস বন্ধুদের নিয়ে সাইকেল নিয়ে রাজপথে নামে। ৩০ জন বন্ধুর দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছিল মুর্তাজা নিজেই। চিৎকার করে সেখানে সে বলেছিল, ‘সৌদিতে সবাই মানবাধিকার পরিস্থিতি সমুন্নত দেখতে চায়।’

মুর্তাজা কুরেইরিসের এই দুঃসাহসিকতা নজর এড়ায়নি সৌদি কর্তৃপক্ষের। মুর্তাজার এই কাণ্ডকে সৌদি কর্তৃপক্ষ রাষ্ট্রদোহিতার শামিল হিসেবে গণ্য করলো। মুর্তাজার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনলো- সে ‘সন্ত্রাসী গ্রুপ’ নিয়ন্ত্রণ করছে। যে অপরাধের শাস্তি শিরশ্ছেদ বা ফাঁসির মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড। এছাড়া তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়েছে, মুর্তাজার ভাই আলী কুরেইরিস মোটরসাইকেলে করে সৌদির পূর্বাঞ্চলীয় শহর আওয়ামিয়ার এক থানায় পেট্রলবোমা ছুড়ে মারেন। সে সময় তার সঙ্গে মুর্তাজাও ছিল।

এ ঘটনার ৩ বছর পর মুর্তাজা কুরেইরিসকে বাহরাইন সীমান্তে গ্রেপ্তার করে সৌদি আরব। ওই দিন পরিবারের সঙ্গে সৌদি ছেড়ে প্রতিবেশী বাহরাইনে পালিয়ে যাচ্ছিল মুর্তাজা। বিক্ষোভের সময় সহিংসতা, নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর পেট্রলবোমা হামলায় সহযোগিতা, ভাইয়ের জানাজার সময় পদযাত্রা বের করার অভিযোগও আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে।

বিশ্ববার্তা সংস্থা সিএনএন’র এক প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে, ২০১২ সালে সৌদি রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে আন্দোলনের সময় মুর্তাজা কুরেইরিসের বড় ভাই আলী কুরেইরিসকে হত্যা করে সৌদি আরবের পুলিশ। জোর করে কুরেইরিসের কাছ থেকে অপরাধের স্বীকারোক্তি সৌদি সরকার আদায় করে নিয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে ওই প্রতিবেদনে।

এর আগে চলতি বছরের এপ্রিলে দেশটি প্রায় ৩৭ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে। সৌদি কর্তৃপক্ষ যদি কুরেইরিসকে ফাঁসির দণ্ড কার্যকর করে, তাহলে মর্তুজা হবে এ বছর সৌদিতে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া চতুর্থ কিশোর, যাদের বয়স ১৯ এর কাছাকাছি।

আজকের পত্রিকা/সিফাত