বাংলাদেশের অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি বিন মুর্তজা শততম ম্যাচ খেলে ফেললেন নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে প্রথম ম্যাচের মাধ্যমে। ছবি: সংগৃহীত

অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার শুরুটা হয়েছিল টেস্ট জয় দিয়ে। তবে কিছুটা ফাঁকি আছে কথাটার ভিতরে। খাতা কলমে মাশরাফি অধিনায়ক হিসেবে থাকলেও সেই ম্যাচে স্বাগতিকদের সাথে প্রথম ইনিংসে বল হাতে নিতেই সপ্তম ওভারে ছিটকেই গেলেন তিনি। শুধু নেতৃত্ব থেকে নয়, টেস্ট ক্যারিয়ার থেকেও। ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হিসেবে সাকিব আল হাসান সেই সফরে টেস্ট-ওয়ানডে দুই সিরিজেই প্রতিপক্ষকে ধবল ধোলাই করে দেশে ফিরলেন বিজয়ীর বেশে।

মাশরাফি ক্যারিয়ারের সর্বনিম্ন বিন্দুতে পৌঁছালেন ২০১১ বিশ্বকাপের দলে জায়গা না পেয়ে। দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ, অথচ তিনি দর্শক! সেই মাশরাফির আশ্চর্য প্রত্যাবর্তন হলো। এ এক নেতা মাশরাফি, যার দেখা আসলে মিললো ২০১৪ সালে। এ সময় বাংলাদেশের ক্রিকেটই যখন পথ হারিয়ে দিশেহারা, সতীর্থের চোট ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হিসেবে ফেরাল তাকে।মুশফিকুর রহিমের চোটে টি-টোয়েন্টিতে নেতৃত্ব দেওয়া মাশরাফি ওই বছরই শেষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির পূর্ণ নেতৃত্ব ভার পেলেন। বিশ্বকাপের মাত্র তিন মাস বাকি ছিল। মাশরাফি দলটাকে খুব দ্রুততার সঙ্গে গুছিয়ে নিলেন। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ট্রেলার দেখাল। আসল জাদু বিশ্বকাপের পর। একে একে পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দল নাকানিচুবানি খেয়ে গেলো বাংলাদেশের কাছে। অধিনায়ক থেকে মাশরাফি হয়ে উঠলেন নেতা। রীতিমতো কিংবদন্তির উচ্চতায়! পরে টি-টোয়েন্টি থেকে সরে গেলেন, কিংবা যেতে হলো। এরমধ্যে তো সত্যি সত্যিই নেতা হয়ে উঠলেন ২০১৮’র একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে।

বাংলাদেশের অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি বিন মুর্তজা শততম ম্যাচ খেলে ফেললেন বুধবার নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে প্রথম ম্যাচ দিয়ে। অধিনায়ক হিসেবে হেড অ্যান্ড টেলের সেই মুদ্রা নিয়ে মাঠে নেমেছেন অধিনায়ক হিসেবে ৭১টি ওয়ানডে, ২৮টি টি-টোয়েন্টি ও ১টি টেস্ট ম্যাচ খেলা মাশরাফি।

আজকের পত্রিকা/এসএমএস/সিফাত