আসাদুজ্জামান স্বপ্ন
সিনিয়র রিপোর্টার

হোসেন সোহরাওয়ার্দীর ছেলে রাশেদ সোহরাওয়ার্দী। ছবি : সংগৃহীত

রাশেদ সোহরাওয়ার্দী আর নেই। তিনি গণতন্ত্রের মানসপুত্রখ্যাত উপমহাদেশের বরেণ্য রাজনীতিক, অবিভক্ত বাংলার শেষ মুখ্যমন্ত্রী ও নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ছেলে। ৭ ফেব্রয়ারি বৃহস্পতিবার রাতে যুক্তরাজ্যের গ্রেটার লন্ডনের নিজ বাসায় তিনি ইন্তেকাল করেন।

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাশেদ সোহরাওয়ার্দীর বন্ধু  সুলতান শরীফ গণমাধ্যমকে তার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘গত ৩ ফেব্রুয়ারি কয়েক ঘণ্টা তার সঙ্গে আড্ডা দিয়েছি। হঠাৎ করে আজ মৃত্যুর খবর এলো।’ তিনি আরও বলেন, ‘মরহুমের পরিবার ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। সব তথ্য জানার পর সবাইকে জানানো তা হবে।’

রাশেদ সোহরাওয়ার্দীকে ৩ ফেব্রুয়ারি অক্সফোর্ড ইউনিয়নে ‘আল জাজিরা: হেড টু হেড’ অনুষ্ঠান রেকর্ডকালে দর্শক আসনে সর্বশেষ তাকে দেখা যায়। রবার্ট অ্যাশবি নামে পরিচিত রাশেদ সোহরাওয়ার্দী একজন খ্যাতিমান ব্রিটিশ লেখক ও অভিনেতা হিসেবে সবার কাছে শ্রদ্ধার পাত্র ছিলেন। এই খ্যাতিমান ব্রিটিশ অভিনেতা ‘লিজেন্ড’ (২০১৫), ‘ডক্টর হু’ (১৯৬৩) ও ‘জিন্নাহ’ (১৯৯৮) চলচ্চিত্রে অভনয়ের জন্য বিশ্বব্যাপী ব্যাপক পরিচিত ছিলেন। তার মা ছিলেন খ্যাতিমান রাশিয়ান অভিনেত্রী ভেড়া আলেক্সানড্রভনা ট্রিসেন্কো। ১৯৮৩ সালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।