সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের লেখা উপন্যাস গাঙচিল থেকে নির্মিত এই ছবির মাধ্যমে দীর্ঘদিন পর বড় পর্দায় দেখা যাবে চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা ও ফেরদৌসকে।

ছবিটির শুটিং শুরু হয়ে প্রথম ধাপের কাজ শেষ হয়েছে বেশ অনেকদিন আগেই। মাঝখানে কিছুটা বিরতি দিয়ে গত ১৭ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে দ্বিতীয় ধাপের শুটিং। এখন শুটিং হচ্ছে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাটে। এই পর্বে শুটিং হবে টানা ১৫ দিন।

পরিচালকসহ গোটা ইউনিট সেখানে উপস্থিত হলেও শুধু অনুপস্থিত ছবির নায়িকা। গতকাল বুধবার পূর্ণিমার শুটিংয়ে অংশ নেওয়ার কথা থাকলেও সড়কপথের অবরোধে। সড়কপথে টানা অবরোধের কারণে পৌঁছানো টা খুবই কঠিন হয়ে পরবে তার জন্য, অন্যদিকে নায়িকা সময়মত পৌঁছাতে না পারলে অনেক টাকার ক্ষতি হয়ে যাবে। তাই বাধ্য হয়েই শুটিং স্পটে সময়মত পৌঁছাতে আশ্রয় নিলেন উড়ালপথের। রওয়ানা দেন হেলিকপ্টারে করে। হেলিকপ্টারে করেই সেটে পৌঁছান ছবির নায়িকা পূর্ণিমা।

পূর্ণিমা বলেন, ‘সকাল থেকেই আমার শুটিং শুরু হওয়ার কথা। তাই খুব ভোরবেলা সড়কপথে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে বের হচ্ছিলাম। কিন্তু বের হয়ে দেখি শ্রমিকরা নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংস্কারের দাবিতে রাস্তাঘাট অবরোধ করেছেন। যার কারণে বাধ্য হয়েই হেলিকপ্টারে আসতে হয়েছে।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট ইউনিয়নের গাঙচিল চরের নাম থেকেই ছবির নাম গাঙচিল রাখা হয়েছে। ছবিতে চরের মানুষের জীবনের গল্প উঠে এসেছে। ছবিটিতে এনজিওর কর্মী মোহনার চরিত্রে অভিনয় করছেন পূর্ণিমা। সাংবাদিক সাগর চরিত্রে অভিনয় করছেন ফেরদৌস। আরও অভিনয় করছেন আসাদুজ্জমান নূর, তারিক আনাম খান, আনিসুর রহমান মিলন ও জয়রাজ প্রমুখ।