ঋতু পরিবর্তনে এসেছে হেমন্ত। শীতের আগমন বার্তা নিয়ে আসা এই ঋতুতে শরীরের অনেক কিছুই পরিবর্তন হয়, সঙ্গে নিয়ে আসে অবসাদ, জ্বর, ক্লান্তি এবং সর্দি। এতে ইতোমধ্যেই অল্পবিস্তর ভুগছেন সকলেই। জেনে নিন কীভাবে সুস্থ থাকবেন এই সময়-

  • আবহাওয়া হঠাত্‍ শুষ্ক হয়ে গেলে আমাদের শরীরেও প্রভাব পড়ে। ত্বক শুষ্ক হয়ে গিয়ে টান ধরে। তাই এই সময় পানি খাওয়ার পরিমান বাড়ানো উচিত্‍। বেশি করে পানি খেলে ঘুম ঘুম ভাব কেটে তরতাজা লাগবে।
  • এই সময় ঘুমের আগে হালকা গরম দুধ খাওয়া শরীরের জন্য ভালো। শরীর গরম থাকবে, ঘুমও ভালো হবে। পারলে দুধের মধ্যে ১ চামচ মধু দিয়ে খান। ঠান্ডা লাগবে না।
  • এই সময় বাতাসে ধুলোবালির পরিমান বেশি থাকায় খাবার বেশিক্ষণ ফেলে না রাখাই ভালো। টাটকা খাবার খেলে শরীর ভালো থাকবে। একইভাবে গরম খাবারও শরীরের পক্ষে এই সময় উপযোগী। শুষ্ক ভাব কাটিয়ে শরীর গরম রাখবে।
  • আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় বাতাসে ভাইরাসের আধিক্য থাকায় সংক্রমণের আশঙ্কা বেড়ে যায়। হাত-পা শুষ্ক হয়ে যাওয়ায় ভাইরাস তাড়াতাড়ি আক্রমণ করে। তাই এই সময় বাইরে থেকে এসে ভালো করে হাত, পা এবং মুখ ধোয়া খুব জরুরি। পারলে হালকা গরম পানিতে অ্যান্টিসেপটিক দিয়ে ভালো করে হাত-পা ধুয়ে নিন।
  • আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় শরীরে স্বাভাবিক নিয়মেই ক্লান্তি আসে। ক্লান্তি কাটাতে ঘুমের বিকল্প নেই। তাই বেশি রাত না জেগে অন্তত ৮ ঘণ্টা ঘুমান। এতে অনেক বেশি সুস্থ থাকবেন। এই সময় শরীরের ঘুমের প্রয়োজন।
  • এই সময় সকালে ঘুম থেকে উঠতে আলস্য আসে। আলস্য কাটাতে হালকা ব্যায়ামের কোনো বিকল্প নেই। অনেক সময় আবাহাওয়া পরিবর্তনের জন্য মন-মেজাজ খারাপ থাকে। ব্যায়াম করলে মনও ভালো থাকবে। আর সুস্থ শরীর, ভালো মনে রোগের সংক্রমণও অনেক কম হয়।

আজকের পত্রিকা/সিফাত