ন্যাপের কারনে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি জীবনধারারও পরিবর্তন আসে। ছবি: সংগৃহীত

আমেরিকান কলেজ অব কার্ডিওলজির ৬৮তম বার্ষিক বৈজ্ঞানিক সেশনের নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, যারা দিনে একবার ন্যাপ নেয়, তাদের উচ্চ রক্তচাপের মাত্রা অন্যদের তুলনায় অনেক কম। গ্রিসের এসক্লেপিওন জেনারেল হসপিটালের কার্ডিওলজিস্ট ম্যানোলিস ক্যালিসট্রেটস বলেন, ‘ন্যাপেরর কারনে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি জীবনধারাতেও পরিবর্তন আসে।’

দিনে কিছুক্ষণ সময় ন্যাপ নিলে রক্তচাপ ৫ এমএম এইচজি কমে যায়। ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৬০ মিনিট ন্যাপ নিলে অন্তত ৩ এমএম এইচজি রক্তচাপ কমে যায়। ক্যালিসট্রেটস বলেন, ‘এই ফলাফল খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ ১ মিমি এইচজি হিসাবে রক্তচাপ কমলে, ১০% পর্যন্ত হার্ট অ্যাটাকের কার্ডিওভাসকুলার ইভেন্টগুলির ঝুঁকিকে কমাতে পারে।’

কাজের ফাঁকে অন্তত কিছু সময়ের জন্য ন্যাপ নেয়া উচিত। ছবি: সংগৃহীত

গবেষণাটি চালানো হয় ২১২ জন মানুষের মধ্যে, যাদের রক্তচাপ ১২৯.৯ এমএম এইচজি। তাদের বয়স গড়ে ৬২ বছর এবং তাদের মধ্যে অর্ধেক নারী। প্রতি চার জনের মধ্যে ১ জন ধূমপায়ী এবং ডায়বেটিক টাইপ ২ আছে। এদের মধ্যে যারা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অন্তত একবার ন্যাপ নিয়েছেন, তাদের রক্তচাপ ৫.৩ এমএম এইচজি কম।

ক্যালিসট্রেটস বলেন, ‘যদিও উভয় গ্রুপ একই পরিমাণ ওষুধ গ্রহণ করে এবং রক্তচাপ ভালভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়, তবুও যারা দিনে কিছু সময় ন্যাপ নেয় তাদের মধ্যে রক্তচাপ উল্লেখযোগ্য হ্রাস পায়।

আমাদের দেশেও প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকের উচ্চ রক্তচাপ আছে। কিছু তারা এর কারণ সম্পর্কে সচেতন না। উচ্চ রক্তচাপ হার্ট এটাক এবং স্ট্রোক উভয়েরই ঝুঁকিই বাড়ায়। তাই তাদের কাজের ফাঁকে অন্তত কিছু সময়ের জন্য ন্যাপ নেওয়া উচিত।

আজকের পত্রিকা/রিয়া/সিফাত