লিগ্যাল নোটিশ পাওয়ার পর হরেক রকমের ফল নিয়ে ডেঙ্গু রোগীর বাসায় মেয়র সাঈদ খোকন। ছবি: সংগৃহীত

সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী তানজিম আল ইসলামের স্ত্রী সাদেকুন নাহার ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার পর আইনি নোটিশ পেয়ে ওই রোগীকে দেখতে আম, আপেল, কলাসহ হরেক রকমের ফল নিয়ে তার বাসায় গেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।

১৩ জুলাই শনিবার দুপুরের দিকে রাজধানীর খিলগাঁওয়ে ওই আইনজীবীর বাসায় যান তিনি। এ সময় মেয়র আইনজীবীর স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার খোঁজ খবর নেন। ডেঙ্গু ও এডিস মশা নিধনে ব্যর্থতার অভিযোগ এনে ১১ জুলাই বৃহস্পতিবার ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে ডিএসসিসি মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর আইনি নোটিশ পাঠান অ্যাডভোকেট তানজিম আল ইসলাম।

ওই আইনজীবী জানান, মেয়রের আগমন উপলক্ষে ১৩ জুলাই শনিবার সকাল থেকেই খিলগাঁওয়ের একতা সড়কে পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা রাস্তা পরিষ্কার শুরু করেন। দুপুর নাগাদ মেয়র সাঈদ খোকন বাসার সামনে পৌঁছান। এরপর তিনি সরাসরি তার বাসায় ফল নিয়ে প্রবেশ করেন।

ওই সময়ে সাদেকুন নাহারের সঙ্গে কথা বলেন মেয়র সাঈদ খোকন। সাদেকুন নাহার অসুস্থতার অভিজ্ঞতার কথা মেয়রকে জানান। এই এলাকায় আর বেশিদিন থাকবেন না বলেও মেয়রকে জানান তিনি। এ সময় অ্যাডভোকেট তানজিম মেয়রকে মশা নিধনে সব বিভাগের সমন্বয়ের পরামর্শ দেন। সাঈদ খোকন প্রায় আধা ঘণ্টা সেখানে অবস্থান করেন।

আইনজীবীর বাসা থেকে বেরিয়ে মেয়র সাংবাদিকদের বলেন, ডেঙ্গুর প্রকোপ বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বেশি। নগর কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় আছে। সব শক্তি দিয়ে ডেঙ্গু মোকাবিলার জন্য কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। সম্মানিত নাগরিকদের আহ্বান জানাচ্ছি, আপনারা সতর্ক থাকবেন। নাগরিকের সতর্কতা এবং কর্তৃপক্ষের সমন্বয়ে ডেঙ্গুমুক্ত শহর উপহার দিতে পারবো বলে আশা করি। নাগরিকদের বলবো, ভয়ের কিছু নেই, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আমরা আপনাদের পাশেই আছি।

মেয়র আরো বলেন, আমাদের কাছে ক্ষতিপূরণ চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ এসেছে। বিষয়টির আইনি প্রক্রিয়ার ব্যাপার রয়েছে। এটি আইন বিভাগের বিষয়। যে নাগরিক ক্ষুব্ধ হয়েছেন, মেয়র হিসেবে তার সঙ্গে থাকা, দেখা করা আমার নৈতিক দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। দায়িত্ববোধ থেকে চলে এসেছি। আমার বোনকে দেখে এসেছি। তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিয়েছি, তাকে আশ্বস্ত করেছি, সবাই মিলে অচিরেই ডেঙ্গুমুক্ত শহর গড়ে তুলবো।

এ সময় অ্যাডভোকেট তানজিম বলেন, মেয়র এসেছেন তার নৈতিক দায়িত্বের জায়গা থেকে। আমার পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে ধন্যবাদ জানাই। ৫০ লাখ টাকার বিষয়টি ক্ষতিপূরণ হিসেবে দেখলে হবে না, প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে দেখতে হবে।
প্রসঙ্গত, ১১ জুলাই বৃহস্পতিবার সকালে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী তানজিম আল ইসলাম লিগ্যাল নোটিশ পাঠান দক্ষিণ সিটি মেয়রকে।

নোটিশে ওই আইনজীবী উল্লেখ করেন, ২৯ জুন আমার স্ত্রী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর ৫ দিন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে তিনি কিছুটা সুস্থ হন। যেহেতু এডিস মশা নিধনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন পুরোপুরি ব্যর্থ, তাই এর দায়ভার তাদের (মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা) নিতে হবে। এ কারণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে এই নোটিশ পাঠানো হলো।

ক্ষতিপূরণের পাশাপাশি আগামী ৩ দিনের মধ্যে খিলগাঁও এক নম্বর ওয়ার্ডে মশা নিধনে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে বলেও জানিয়েছেন ওই আইনজীবী। এসব দাবি না মানলে যথাযথ ক্ষতিপূরণ আদায়ে বিবাদীদের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাওয়া হবে বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি।

আজকের পত্রিকা/কেএফ