স্বামী গুরুমহারাজের ৭৪ তম আবির্ভাব তিথি কাল

ইসকন এর অন্যতম জি বি সি ও দীক্ষাগুরু শ্রীল ভক্তিচারু স্বামী গুরুমহারাজ’র ৭৪ তম আবির্ভাব তিথি আগামীকাল মঙ্গলবার। শ্রীল ভক্তিচারু স্বামী গুরুমহারাজ ইসকন প্রতিষ্ঠাতা আচার্য শ্রীল প্রভুপাদের কৃপাধন্য শিষ্য তিনি।

বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের অধিকারী বিশ্ববরেণ্য এই দীক্ষাগুরু ১৯৪৪ সালের ১৭ ই সেপ্টেম্বর পূর্ববঙ্গে একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারে আবির্ভূত হন। মহারাজ তার শৈশবের বেশিরভাগ সময় কলকাতায় কাটিয়েছেন।

১৯৭০ সালে উচ্চশিক্ষার জন্য মহারাজ জার্মানির উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। সেখানেই তিনি ভারতবর্ষের আধ্যাত্মিক ঐতিহ্যের গুরুত্ব উপলব্ধি করেন এবং এই দিব্যঐশ্বর্যের দ্বারা নিজেকে সমৃদ্ধ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

একজন সৎগুরু অন্বেষণে হতাশাজনক এক দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করার পর তিনি অবশেষে ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ এর সাক্ষাত লাভ করেন এবং তাঁর নিকট আত্মসমর্পণ করেন। তারপর অল্পসময়ের মধ্যে তিনি নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছেন।

১৯৭৭ সালে প্রভুপাদের অপ্রকটের পর থেকে তিনি আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘের একজন আধ্যাত্মিক নেতৃস্থানীয় প্রচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

বহু বছরের এক সম্মিলিত প্রচেষ্টায় তিনি প্রভুপাদের গ্রন্থাবলী বঙ্গানুবাদ করার কার্য সম্পাদন করেন, পাশাপাশি প্রভুপাদের জীবনের উপর ভিত্তি করে একটি জীবনী মুলক চলচ্চিত্র বানানোর অতি বৃহৎ কার্য সম্পাদন করেন। বৈদিক জ্ঞানের একজন নেতৃস্থানীয় প্রচারক ও প্রবক্তা হিসেবে তিনি সমগ্র বিশ্ব জুড়ে ভ্রমণ করেন এবং প্রভুপাদের প্রদর্শিত ভক্তিযোগের তথ্যদর্শন প্রচারক হিসাবে পরিচিতি অর্জন করেছেন। মহারাজের আবির্ভাব তিথিটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন উপলক্ষে ইসকন সিলেটে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।
কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, ১৭ সেপ্টেম্বর ভোর সাড়ে ৪ টায় মঙ্গল আরতি ,সকাল সাড়ে ৭ দর্শন আরতি ও গুরুপূজা, সকাল ৮ টায় শ্রীমদ্ভাগবত পাঠ, সকাল ৯ টায় বিশ্ব হরিনাম দিবস উপলক্ষে সংকীর্তন শোভাযাত্রা, ও শ্রীধাম উজ্জ্বয়নী থেকে শ্রীল ভক্তিচারু স্বামী গুরুমহারাজের বাংলা ভাষায় প্রদত্ত শ্রীমদ্ভাগবতীয় প্রবচন সরাসরি সম্প্রচার।

সকাল ১০ টায় কীর্তনমেলা , সকাল ১১ টায় গুরুমহারাজের মহা-অভিষেক ও ব্যাসপূজা ,বেলা সাড়ে ১২ টায় শ্রীল প্রভুপাদ ও শ্রীল গুরুমহারাজের মহিমা কীর্তন, দুপুর ২ টায় মহাপ্রসাদ বিতরণ, বিকাল টায় অফারিং লেটার পাঠ, সন্ধ্যা ৬ টা ৪৫ মিনিটে শ্রীশ্রী তুলসী আরতি ও শ্রীশ্রী গৌরসুন্দরের আরতি ও রাত ৮ টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

উল্লেখ্য, বিশ্ব হরিনাম দিবস উপলক্ষে ইসকন সিলেটের উদ্দ্যেগে রেলী অনুষ্টিত হবে। র‌্যালিটি ইসকন সিলেট মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ইসকন মন্দিরে এসে সমাপ্তি হবে।

অনুষ্ঠানে সর্বস্তরের ভক্ত অনুরাগীদের স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপস্থিতি থাকার জন্য ইসকন বাংলাদেশের সহ-সভাপতি ও ইসকন সিলেটের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ ভক্তি অদ্বৈত নবদ্বীপ স্বামী মহারাজ বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন।