স্তন্যপান করানোর জন্যে তাজমহলে রাখা হচ্ছে বিশেষ ঘর। ছবি : সংগৃহীত

প্রথম ছয় মাস শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানো শিশুর বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত অপরিহার্য। কিন্তু সামাজিক প্রতিবন্ধকতা এবং ট্যাবু থাকার ফলে মায়েরা শিশুকে স্তন্যপান করানোর জন্যে আদর্শ স্থানের অভাবের সম্মুখীন হয়। কারণ বাইরের পরিবেশে গিয়ে জনসাধারণের চোখের আড়ালে স্তন্যপান করানোর মতো জায়গা সহজলভ্য নয়।

অনেক মায়েদের শিশুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে রীতিমত বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। শিশুর খিদে পেলে তাকে স্তন্যপান করাতে একান্ত স্থানের অভাব দেখা দেয়। অন্যদিকে প্রকাশ্যে স্তন্যপান করাতে গেলে বাজে এবং কুরুচিকর মন্তব্য করে বসে অনেকে।

এই সমস্যার সমাধানে ভারতের প্রত্নতাত্তিক বিভাগ প্রথমবারের মতো স্তন্যপান করানোর জন্য বিশেষ ঘরের ব্যবস্থা রাখছে তাজমহল।

এই বছরের জুলাইয়ের মধ্যে এই ঘরটি স্থাপন করা হবে বলে জানায় তাজমহল কর্তৃপক্ষ। সেখানকার কর্মকর্তারা পর্যটকদের মধ্যে দুর্দশাগ্রস্ত মায়েদের দেখেছেন, যারা বাচ্চাকে স্তন্যপান করানো নিয়ে রীতিমতো একটা মানসিক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েন।

তারা আরও জানান, ‘স্তন্যপান করানো মাতৃত্বের মৌলিক অধিকার। তাই আমরা ভেবেছি এই বিষয়ে আমাদের কিছু একটা করা উচিত। বিশেষ করে যখন হাজার হাজার পর্যটকদের ভিড় হয়, তখন এটা আরও বিব্রতকর ও খারাপ পরিস্থিতির তৈরি করে’।

কর্তৃপক্ষ মনে করছেন, এই পদক্ষেপটি ভ্রমণ করতে আসা লক্ষ লক্ষ মায়েদের উপকারে আসবে।

মায়েদের জন্য করা এই নার্সিং রুমে সব আধুনিক সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা করা হবে। মায়েদের স্বস্তির কথা ভেবে এখানে লাইট, ফ্যান, চেয়ার, এবং টেবিলের ব্যবস্থা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত বছর উপযুক্ত স্থানের অভাবে এমন রুমের ব্যবস্থা করা সম্ভব হয়নি। ওই বছর কলকাতায় এক নারীকে শপিং মলে তার শিশুকে স্তন্যপান করানো নিয়ে উপহাস করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে দেশের সব মায়েরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানায়। এই ঘটনার পর থেকে বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজরে আসে এবং তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সম্মত হয়।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/এমএআরএস