ছবি: সংগৃহীত

চট্টগ্রামের সরকারি মুসলিম হাইস্কুলের ইংরেজির শিক্ষক ছিলেন মোহাম্মদ ইসহাক। ১৯৬৫ থেকে ৯৪ সাল পর্যন্ত মুসলিম হাইস্কুলে শিক্ষকতা করেছেন তিনি। সর্বশেষ প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব থেকে অবসর নেন। বয়সের ভারে মোহাম্মদ ইসহাক এখন অনেকটাই ন্যুব্জ। কত কত শিক্ষার্থী তাঁর হাত ধরেই স্কুল জীবন পার করেছে। কারো কারো স্মৃতি থেকে হয়তো তিনি চলেও গেছেন, কিন্তু কেউ কেউ এখনো মনে রেখেছেন প্রিয় এই শিক্ষককে। তাদের মধ্যেই একজন বর্তমান তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

১৯৭৮ সালে চট্টগ্রামের সরকারি মুসলিম হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেছিলেন ড. হাছান মাহমুদ। স্কুল জীবন পার করে অনেকটা পথ হেঁটে বর্তমানে তথ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। সাথে আছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদকের দায়িত্বও। এত এত দায়িত্বের ভিড়ে তবু তিনি ভুলে যাননি তাঁর প্রিয় এই শিক্ষককে। স্কুলজীবনের শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাকের খোঁজ নিতে তাঁর বাসায় গিয়েছেন তিনি।

৯ আগস্ট শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় শৈশবের স্মৃতিজড়ানো বিদ্যাপীঠ মুসলিম হাইস্কুলের ইংরেজির শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাককে তাঁর বায়েজিদের বাসায় দেখতে যান তথ্যমন্ত্রী। এ সময় একই ব্যাচের শিক্ষার্থী জামাল নাসের চৌধুরী ও এস এম ইলিয়াছ দুলালও তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

হাছান মাহমুদের কাছে শিক্ষক মোহাম্মদ ইসহাক জানতে চান, ‘তোমার সন্তান কয়জন?’ মন্ত্রী জবাব দেন, ‘আমার এক ছেলে, দুই মেয়ে।’ এ কথা বলতেই শিক্ষক বলে ওঠেন, ‘দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো ভালো। চট্টগ্রামে সবচেয়ে ভালো স্কুল হচ্ছে- মুসলিম হাই, কলেজিয়েট ও খাস্তগীর।’

তথ্যমন্ত্রী জানতে চান, ‘এখন মুসলিম হাইস্কুলে পড়াশোনার মান কেমন?’ শিক্ষক ইসহাক বলেন, ‘খুবই ভালো। প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়—এর মধ্যে থাকেই।’ তিনি মন্ত্রীকে বলেন, ‘উদারতার কোনো বিকল্প নেই। আকাশসম উদারতা দেখাতে হবে।’

স্কুলজীবনের স্মৃতি স্মরণ করতে গিয়ে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘স্কুলজীবনে রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়ায় আপনি স্যার একবার আমার বাবাকে অভিযোগ দিয়ে বলেছিলেন, আমি পড়ালেখার চেয়ে রাজনীতি নিয়ে ঘুরছি বেশি। এরপর বাবা আমাকে প্রচণ্ড পিটিয়েছিলেন।’

আজকের পত্রিকা/সিফাত