রোম্যান্স করলে শরীর মন দুটোই ভালো থাকে। ছবি: সংগৃহীত

রোম্যান্স করলে শরীর ও মন দুটোই ভালো থাকে, এ বিষয়ে সবাই অবগত। তবে রোম্যান্সের জন্য শরীরের কী কী উপকার হয় এ বিষয়ে অনেকেই জানেন না। চলুন জেনে নিই সুস্থ থাকার জন্য কেন রোম্যান্স জরুরি-

চুমু

গভীর চুমুতে তিরিশ মিনিটেই নব্বই ক্যালোরি কমে যায়। ছবি: সংগৃহীত

চুমু খাওয়ার সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হলো এটি ক্যালোরির পরিমান কমায়। গবেষণায় দেখা গিয়েছে এক মিনিট চুমু খেলে ছয় ক্যালোরি কমে আর গভীর চুমুতে তিরিশ মিনিটেই নব্বই ক্যালোরি কমে যায়। এছাড়াও চুমু মজবুত করে মুখের পেশি। ক্লান্তি দূর করতেও চুমু সহায়ক।

পোশাক

মেদ কমানোর জন্য নাকি পোশাক পরা অবস্থায় যৌনমিলনই সবচেয়ে বেশি উপকারী৷ ছবি: সংগৃহীত

ইটালিয়ান গবেষকরা দেখেছেন, খোলামেলা পোশাক পরে থাকলে ঘণ্টায় আট থেকে দশ ক্যালোরি কমে। আর কোনো পুরুষ যদি তার নারী সঙ্গীর ব্রা মুখ দিয়ে খুলে দেয় তাহলে সর্বোচ্চ ৮০ ক্যালোরি পর্যন্ত কমে। মেদ কমানোর জন্য নাকি পোশাক পরা অবস্থায় যৌনমিলনই সবচেয়ে বেশি উপকারী৷ পোশাক পরে মিলিত হলে ৩০ মিনিটেই ঝরে ২৩৮ ক্যালরি৷

ম্যাসাজ

ধীরে ধীরে মাসাজ করালে ঘণ্টায় ৮০ ক্যালরির মতো ঝরে৷ ছবি: সংগৃহীত

শারীরিক ও মানসিক সুস্থতার জন্য ম্যাসাজ খুব কার্যকরী। দেহ ও মনের ক্লান্তি শিথিল করতে, ব্যথা ও ওজন কমাতেও ম্যাসাজ সহায়ক। এটা দেহের স্নায়ুগুলোকে সতেজ করে, রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া স্বাভাবিক করে এবং রক্তে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়ায়। এছাড়াও দেখা গেছে ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করালে ঘণ্টায় ৮০ ক্যালরির মতো ঝরে৷

যৌন উত্তেজক নাচ

রোম্যান্টিক ও যৌন উত্তেজক নাচে তিরিশ মিনিটে ১০০ ক্যালোরি কমে। ছবি: সংগৃহীত

বিজ্ঞানীদের মতে, রোম্যান্টিক ও যৌন উত্তেজক নাচে তিরিশ মিনিটে ১০০ ক্যালোরি কমে। এছাড়াও হাড় শক্তপোক্ত হয়, কোলেস্টরলের মাত্রা কমতে থাকে, ব্রেন পাওয়ার বৃদ্ধি পায়, মানসিক চাপ এবং স্ট্রেস লেভেল কমে।

আজকের পত্রিকা/রিয়া/সিফাত