শিশু ঝর্নার স্বজনদের আহাজারি।

মায়ের সঙ্গে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসে চার বছর বয়সী শিশুকন্যা ঝর্ণা। চিকিৎসা শেষে হাসপাতালের মেইন গেইট পার হচ্ছিল মা মাহমুদা বেগম ও তার আরেক বোন।

এ সময় পেছন থেকে আসা একটি দ্রুতগামী ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চাপায় ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার। সুস্থ হওয়া আর হলো না ঝর্ণার। ২৫ মার্চ সোমবার বেলা ১১টার দিকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের মেইন গেইটের সামনে এসআর রোডে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শিশু ঝর্ণা সদর উপজেলার টুমচর গ্রামের মো. স্বপনের মেয়ে। ঘটনার পর শিশুটির মরদেহ কোলে জড়িয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন মা মাহমুদা বেগম। তার আত্মনাদে আশপাশের লোকজন অটো রিকশাটিকে আটক করলেও পালিয়ে যায় ঘাতক চালক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চিকিৎসা শেষে দুই মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালের সামনে রাস্তা পারাপার হচ্ছিলেন মা মাহমুদা। ব্যস্ততম সড়কে হঠাৎ পাশ থেকে দ্রুতগামী একটি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ঝর্ণাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই শিশুটির মৃত্যু হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন অটোরিকশাটিকে আটক করে। তবে পালিয়ে যায় ঘাতক চালক।

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. লোকমান হোসেন বলেন, নিহত শিশুটির মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। অটোরিকশাটি পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মোঃ সোহেল রানা/লক্ষ্মীপুর/জেবি