অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমির সভাপতি ড. আনিসুজ্জামান। ছবি: আনন্দ আলো

৮ এপ্রিল সোমবার এক জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার ২০১৯ প্রদান করা হয়েছে। চ্যানেল আই’র ছাদ বারান্দায় এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমির সভাপতি ড. আনিসুজ্জামান।

এ বছর যারা সিটি ব্যাংক আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন তারা হলেন- কথাসাহিত্যে অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘কয়লা তলা ও অন্যান্য’ গ্রন্থের জন্য সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম এবং প্রথমা থেকে প্রকাশিত ‘মামলার সাক্ষী ময়না পাখি’ গ্রন্থের জন্য শাহাদুজ্জামান।

কবিতায় পুরস্কার পেয়েছেন অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘পানতুম’ গ্রন্থের জন্য মারুফুল ইসলাম এবং অনন্যা থেকে প্রকাশিত ‘১৯ নম্বর কবিতা মোকাম’ গ্রন্থের জন্য আফজাল হোসেন। প্রবন্ধ ও মুক্তিযুদ্ধ শাখায় কথা প্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘সময় বহিয়া যায়’ গ্রন্থের জন্য সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও প্রিয়মুখ থেকে প্রকাশিত ‘১৯৭১ প্রতিরোধ সংগ্রাম বিজয়’ গ্রন্থের জন্য মেজর জেনারেল মো: সরোওয়ার হোসেন পেয়েছেন এ পুরস্কার।

ভ্রমণ ও আত্মজীবনী শাখায় সময় প্রকাশন থেকে প্রকাশিত ‘সুদূরের অদূর দুয়ার’ গ্রন্থের জন্য ফারুক মঈনউদ্দীন, শিশুসাহিত্য শাখায় কথা প্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘ভূত কল্যান সমিতি’ গ্রন্থের জন্য মুস্তাফিজ শফী, শিশুপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘রঙের গাছ’ গ্রন্থের জন্য মোকারম হোসেন এবং প্রথম বই শাখায় জার্নিম্যান থেকে প্রকাশিত ‘ঘটনা কিংবা দূর্ঘটনার গল্প’ গ্রন্থের জন্য মাজহারুল ইসলাম, অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘নিঃসঙ্গতার পাখিরা’ গ্রন্থের হক ফারুক আহমেদ ও জার্নিম্যান থেকে প্রকাশিত ‘অন ডেইজ লাইক দিজ’ গ্রন্থের জন্য শায়রা আফরিদা ঐশী এ বছর আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার পেলেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবিবুল্লাহ সিরাজী, চ্যানেল আই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও আনন্দ আলোর সম্পাদক মণ্ডলীর সভাপতি ফরিদুর রেজা সাগর, সিটি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মাসরুর আরেফিন এবং আনন্দ আলোর সম্পাদক ও লেখক রেজানুর রহমান। দিলরুবা সাথীর উপস্থাপনায় পুরো অনুষ্ঠানটি চ্যানেল আইতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

আজকের পত্রিকা/সিফাত/জেবি