পাবনার ভাঙ্গুরা উপজেলার কাজলী খাতুন।

তিন বছর বয়সে চোখের দৃষ্টি হারান।

চোখের আলো না থাকলেও তার আছে সুরেলা কণ্ঠ। ট্রেন আর স্টেশনে গান গেয়ে তিনি চালান জীবন জীবিকা।

স্থানীয় লোকজন বলছেন, কলকাতার রানু মণ্ডলের মতো তারকা শিল্পী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে কাজলীর। শুধু প্রতিভা বিকাশে দরকার সবার সহযোগিতা।

কাজলী খাতুনের গান যেন তার জীবনেরই প্রতিচ্ছবি।

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার দহপাড়া গ্রামের কাজলী খাতুন।

১৫ বছর বয়সে বিয়ে হয় এক ভিক্ষুকের সাথে। সেই থেকে ট্রেন আর স্টেশনে ঘুরে গান গেয়ে ভিক্ষা করেন তিনিও।

কাজলী খাতুনের গানে মুগ্ধ যাত্রীরাও। কেউ কেউ ভিডিও আপলোড করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে তেমনই একটি ভিডিও।

স্থানীয়রা বলছেন, সঠিক পরিচর্যা পেলে আরও ভালো গান উপহার দিতে পারবেন কাজলী।

ভিক্ষার পথ ছেড়ে আজীবন গান গেয়ে কাটাতে চান কাজলী খাতুন।

অন্ধকার জীবনে আলো ফোটাতে চেয়েছেন সবার সহযোগিতা।

-শাহিন রহমান