কি হবে যদি আপনি আপনার কর্মক্ষেত্রে কারোর উপর প্রেমে পড়েন? ছবি: সংগৃহীত

কি হবে যদি আপনি আপনার কর্মক্ষেত্রে কারোর উপর প্রেমে পড়েন? আপনি পেশাগতভাবে তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন? আপনার কর্মজীবনের ঝুঁকি কতটুকু? এক্ষেত্রে আপনার যেসব জিনিস বিশেষ বিবেচনায় রাখতে হবে-

অফিস রোমান্স কতটা স্বাভাবিক?

অফিসে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলা অনেকের কাছেই অস্বাভাবিক মনে হতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

মন্সটার ডট কম এর ক্যারিয়ার বিশেষজ্ঞ ভিকি সালেমি বলেছেন, অফিসে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলা অনেকের কাছেই অস্বাভাবিক মনে হতে পারে। কিন্তু ২০১৪ সালের এক গবেষণায় ৩৮ শতাংশ সহকর্মী বলছেন যে তারা তাদের পেশাগত কর্মজীবনের মধ্যে কোন না কোন সময়ে তাদের সহকর্মীকে ডেট করেছেন। সালেমি বলেন, “অফিসের বাইরের কারোর দেখা করা কঠিন হয়ে যায় এবং সহকর্মীরা যতটা সময় একসাথে ব্যয় করতে পারে, তাতে একটি সম্পর্ক গঠনের সম্ভাবনা থাকে।”

আরেকবার ভাবুন

এধরণের সম্পর্কে জড়ালে আপনি নিজের সম্মান ও পেশাগত অবস্থানের উপর প্রভাব পরতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

এধরণের সম্পর্কে জড়ালে আপনি নিজের সম্মান ও পেশাগত অবস্থানের উপর প্রভাব পরতে পারে। সালেমির মতে, এ নিয়ে বার বার চিন্তা করা খারাপ হবে না। তিনি বলেন, “আপনি যদি একটু বেশিই ফ্লার্ট করে থাকেন, অফিসে যারা নতুন আসছে তাদের সাথেও এরকম আচরণ করে থাকেন তাহলে আপনার পেশাগত ঝমেলায় পড়ার সম্ভাবনা আছে।“ তিনি আরো বলেন, ”এরকম সমস্যায় যেন না পরতে হয় তার জন্য যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। আপনার জন্য আরেকজনকে যদি একটুও ভুগতে হয় তাহলে এটা দুঃখজনক।“

বস থেকে দূরে থাকুন

আপনি যদি এমন কারোর সাথে ডেটে যান যে আপনার উপরে ক্ষমতা রাখে তাহলে ব্যাপারটা আপনার জন্যই বিরক্তিকর হয়ে যাবে। ছবি: সংগৃহীত

সালেমি বলেন, সহকর্মীর সাথে এধরণের সম্পর্কে জড়ানো আর বসের সাথে এরকম করা পুরোপুরিই ভিন্ন। আপনি যদি এমন কারোর সাথে ডেটে যান যে আপনার উপরে ক্ষমতা রাখে তাহলে ব্যাপারটা আপনার জন্যই বিরক্তিকর হয়ে যাবে। আবার এমনও হতে পারে যদি আপনাদের সম্পর্ক না টিকে তাহলে পেশাগতভাবেও চাপে পরতে পারেন।

ব্যক্তিগত ও পেশাগত পরিবেশ

আপনাদের অবসর সময়ে ক্যাফেটেরিয়াতে বসে কিছুক্ষণ কথা বলা যেতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

অফিসে পেশাগত আচরণ বজায় রাখা উচিত। আপনি যাকে ডেট করছেন তার সাথে অফিসের মধ্যেই অন্যান্য আলাপ করা শোভনীয় না। খুব জরুরি কথা থাকলে তা ভিন্ন। এর জন্য আপনাদের অবসর সময়ে ক্যাফেটেরিয়াতে বসে কিছুক্ষণ কথা বলা যেতে পারে। কিন্তু তা অবশ্যই ঘন্টার পর ঘন্টা হতে পারে না।

সংযত থাকা

একে অপরের সাথে পরিষ্কারভাবে সীমানা নির্ধারণ করুন। ছবি: সংগৃহীত

আপনার প্রেমিকা যখনই আপনার পাশে থাকে আপনার তাকে জড়িয়ে ধরতে ইচ্ছে করবে বা চুমু দিতে ইচ্ছা করবে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তা অফিসের পরিবেশে স্বাভাবিক না। অফিসের বাইরে আপনার সম্পর্ক রাখুন। অফিসের ভিতরে কাজ রাখুন। একে অপরের সাথে পরিষ্কারভাবে সীমানা নির্ধারণ করুন এবং আপনার কাজকে শ্রদ্ধা করুন যাতে আপনার নিয়োগকর্তা সহ কেউই আঘাত পায় না।

আজকের পত্রিকা/রিয়া/এমএইচএস