মাত্র ৩৪ বছরের বয়সে বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীর পদে বসতে যাচ্ছেন ফিনল্যান্ডের সানা ম্যারিন। চলতি সপ্তাহেই এই দায়িত্ব গ্রহণের কথা রয়েছে তার।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী অ্যান্তি রিনের পদত্যাগের পর ৮ ডিসেম্বর রবিবার সানাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেছে সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি। ৩ ডিসেম্বর মঙ্গলবার এক আস্থা ভোটে হেরে পদত্যাগ করেন অ্যান্তি রিন। এর আগে দেশটির পরিবহনমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন সানা।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত হওয়ার পর প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সানা সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনতে আমাদের অনেক কাজ করতে হবে।’

বয়স নিয়ে প্রশ্ন করা হলে সানা বলেছেন, ‘আমি আমার বয়স নিয়ে কখনো ভাবিনি। কেন আমি রাজনীতিতে এসেছি, আমি কেবল সেই কারণ নিয়েই ভাবি।’

ফিনল্যান্ডের সরকার যে পাঁচটি দলের সমন্বয়ে গঠিত, সব কটি দলের নেতৃত্বেই এখন নারী। সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতৃত্বে ৩৪ বছর বয়সী সানা, বামপন্থী জোটের নেতৃত্বে ৩২ বছর বয়সী লি অ্যান্ডারসন, মধ্যপন্থী জোটের নেতৃত্বে ৩২ বছর বয়সী কাট্রি কুলমুনি, গ্রিন লিগের নেতৃত্বে ৩৪ বছর বয়সী মারিয়া ওহিসালো এবং সুইডিশ পিপলস পার্টি অব ফিনল্যান্ডের নেতৃত্বে আছেন ৫৫ বছর বয়সী অ্যানা-মাজা হেনরিকসন।

ফিনল্যান্ড ছাড়াও বর্তমানে বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে তরুণ প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করছেন। ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ওলেকসি হোনচারুকের বয়স ৩৫ বছর, নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্নের বয়স ৩৯ বছর। উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং-উনের বয়সও ৩৫।

আজকের পত্রিকা/সিফাত