মৎস্য ও প্রানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু। ছবি : সংগৃহীত

আমাদের প্রধানমন্ত্রী কোনো কাজেই অর্থের অভাববোধ করেন না। সরকারের পাশাপাশি শিল্প মালিকদের এগিয়ে আসতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু। ২৪ এপ্রিল বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব নবাব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনের সিনেট হলে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে মৎস্য ও প্রানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ইকোনমি অর্থাৎ সমুদ্রসম্পদ উত্তোলনের ক্ষেত্রে আমাদের সীমাবদ্ধতার কথা উল্লেখ করে  আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সমুদ্রসম্পদের ওপর প্রাপ্ত মতামত ও সুপারিশগুলো সরকারের যথাযথ ফোরামে পেশ করার মাধ্যমে সরকারকে সহযোগিতার আহবান জানান মৎস্য ও প্রানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু।

সমুদ্রে জড়সম্পদের পাশাপাশি প্রচুর জীবন্তসম্পদ থাকলেও আমাদের অনুসন্ধানী ও জরিপ জাহাজের গভীর সমুদ্রে যাবার সামর্থ্য না থাকার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা গভীর সমুদ্রে যাবার এবং সম্পদ-আহরণের লক্ষে উন্নতমানের জাহাজ আনার জন্য বারবার চেষ্টা করলেও যথাযথ সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না’।

গবেষকদের গবেষণা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি শিল্পমালিকদের সমুদ্রসম্পদ আহরণে ভূমিকা রাখতে এগিয়ে আসার প্রয়োজনের ওপর জোর দেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড কাওসার আহমেদের সভাপতিত্বে অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মেনির বাইলোজি রিচার্স ইনস্টিটিউট এর এসডিডাব্লিউ সব্যসাচী মজুমদার, বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘বল্টু-ইকোনমি’ সেলের অতিরিক্ত সচিব ড গোলাম শফি উদ্দীন প্রমুখ।

মায়ানমার একই সমুদ্রের সমান্তরাল ও ধারাবাহিক অংশে বিপুল পরিমাণ গ্যাসপ্রাপ্তির পর তা উত্তোলন এবং বিদেশে রপ্তানি করলেও আমরা নির্লিপ্ত আছি বলেও বক্তারা উল্লেখ করেন।

দিনব্যাপী ৪টি সেসনে দেশ-বিদেশের গবেষক, বিজ্ঞানী, অধ্যাপকসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিগণ সম্মেলনে যোগদান করেন।

আজকের পত্রিকা/আর.বি/আ.স্ব