কাজী ফয়সাল
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কর্মী সুলতান মো. ওয়াসি। ছবি : সংগৃহীত

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলনে অসুস্থ হয়ে সুলতান মো. ওয়াসি নামের এক কর্মী মারা গেছেন। ২০ জুলাই শনিবার বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়।

সুলতান মো. ওয়াসি জবির ইংরেজি বিভাগের ১১তম ব্যাচের ২০১৫-২০১৬ সেশনের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি ঢাকার পল্লবী থানাধীন আলব্দি এলাকার বজলুল গনি মো. মোসাদ্দেক ও লুৎফুন্নাহার বেগমের ছেলে।

জবি ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, জবি ছাত্রলীগের সম্মেলন আজ বেলা ১১টায় শুরু হওয়ার কথা ছিল। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করেন দুপুর সাড়ে ১২টায়। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন উপস্থিত হন ২টা ২০ মিনিটে। এর ১০ মিনিট পর ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। এরপর বিকেল ৩টায় অনুষ্ঠান শুরু হয়।

এতটা সময় ধরে পুরো অনুষ্ঠান জুড়ে অবস্থান নেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। প্রচণ্ড গরমে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর মধ্যে সুলতান মো. ওয়াসি মারা যান। আর জবির ১৩ ব্যাচের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী রাফিত অসুস্থ হয়ে পুরান ঢাকার ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দেরীতে উপস্থিত হওয়ার কারণে অনুষ্ঠান শুরুর জন্য অপেক্ষা করতে হয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে। এ নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সুলতান মো. ওয়াসি বিষয়ে জবির সহকারী প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল বলেন, ওই শিক্ষার্থী হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে আমরা তাকে দ্রুত ন্যাশনাল মেডিকেলে নিয়ে যাই। সেখানে ইসিজি করে কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেন, তারা কোনো কোনো পালস পাচ্ছেন না। আমি পরে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাম্বুলেন্স করে তাঁকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠিয়েছিলাম। পরে যোগাযোগ করা হলে ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে থাকা তার সহপাঠী আমাদের জানান, অনেক চেষ্টা করেও তাকে বাঁচাতে পারলাম না।

মারা যাওয়া ওয়াসির জাতীয় পরিচয় পত্র এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয় পত্র। ছবি: সংগৃহীত

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সম্মেলনের শুরুতে ওয়াসিকে সুস্থ স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে দেখা গেছে। হঠাৎ করে সম্মেলনস্থলের মূল মঞ্চের সামনে স্লোগান দিতে দিতে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। সঙ্গে সঙ্গে তাকে জবি ক্যাম্পাসের পাশেই একটি বেসরকারি মেডিকেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেলে নেওয়ার পরামর্শ দেন। পরে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে সেখানে ওয়াসিকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

এদিকে ছাত্রলীগের সম্মেলনের এসে ওয়াসির মৃত্যুতে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তার সহপাঠীরা। ওয়াসির সহপাঠীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ১১টার সম্মেলন শুরু হয় বিকেল ৩টায়। প্রচণ্ড গরমে অন্তত সাড়ে চার ঘণ্টা অপেক্ষায় থেকে স্লোগান দিতে থাকেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ফলে সকাল থেকে টানা গরম সহ্য করতে না পেরে ওয়াসির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তারা।

আজকের পত্রিকা/কেএফ