সম্পদের অর্ধেক দান করে দেবেন অ্যামাজন প্রধানের সাবেক স্ত্রী ম্যাকেঞ্জি। ছবি : সংগৃহীত

অ্যামাজন দ্য এভ্রিথিং স্টোর এর প্রধান জেফ বেজোস। জেফ বেজোস-ম্যাকেঞ্জি দম্পতির বিবাহবিচ্ছেদ হওয়ায় জেফ বেজোসের স্ত্রী ম্যাকেঞ্জি বেজোস বিবাহবিচ্ছেদ থেকে পান ৩ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের সম্পদ। তার অর্ধেক তিনি দান করে দেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

বিবাহবিচ্ছেদের পর ম্যাকেঞ্জি বেজোস বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনীদের কাতারে চলে আসেন।

ওয়ারেন বাফেট ও বিল গেটস নিজের সম্পদের অর্ধেক দান করে দেয়ার বিষয়টি প্রথমে চালু করেন। এ দুজন পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। তারা নিজেদের সম্পদের অর্ধেক কিংবা তার চেয়ে বেশি দান করে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

জেফ বেজোসের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের শর্ত হিসেবে ম্যাকেঞ্জি কোম্পানির ৪ শতাংশ শেয়ার অর্জন করেন। এ বছরের শুরুতে জেফ বেজোস ও ম্যাকেঞ্জি বেজোস দীর্ঘ ২৫ বছরের বৈবাহিক সম্পর্কের ইতি টানেন।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনলাইন ক্রয়-বিক্রয় প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী জেফ বেজোস এখন বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের একজন। তার সম্পদের পরিমাণ এখন ১৫০ বিলিয়ন বা ১৫ হাজার কোটি ডলার। তার থেকে অনেকটা পিছিয়ে দ্বিতীয় স্থানে বিল গেটস, যার সম্পদের পরিমাণ ৯৫ বিলিয়ন ডলার।

উল্লেখ্য, প্রতিষ্ঠিত কোম্পানি অ্যামাজন এক সময় ছিলো অনলাইনে পুরনো বই বিক্রির প্রতিষ্ঠান। আর এখন তা শিগগিরই হতে যাচ্ছে পৃথিবীর প্রথম ট্রিলিয়ন-ডলার কোম্পানি। অর্থাৎ তার মূল্য হবে এক লাখ কোটি ডলার। বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে পোষা বিড়ালের খাবার থেকে শুরু করে বহুমূল্য ক্যাভিয়ার পর্যন্ত সব কিছুই কেনা যায় অ্যামাজনে।

শুধু তাই নয়, অ্যামাজনের আছে স্ট্রিমিং টিভি, এমন কি নিজস্ব অ্যারোস্পেস কোম্পানি- যাতে শিগগিরই মহাশূন্য ভ্রমণের টিকিট পাওয়া যাবে।

আজকের পত্রিকা/কেএইচআর/এআরকে