অরণি সেমন্তি খান। ছবি : ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে স্বতন্ত্র জোটের ভিপি প্রার্থী অরণি সেমন্তি খান বলেছেন, সন্ত্রাসীকে সন্ত্রাসী বলতে ভয় কিসের?

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আজকের পত্রিকার সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আমরা তিন দিনের মধ্যে পুন:তফসিলের আল্টিমেটাম দিয়েছি প্রশাসনকে। এরপর নতুন কর্মসূচি দেওয়া হবে সমন্বিতভাবে।

মঙ্গলবার টিএসসিতে বিকেলে টিএসসিতে নব নির্বাচিত ভিপি নুরুল হক ও অন্যান্য প্যানেলের নেতা-কর্মীদের ধাওয়া দেয় ছাত্রলীগ। এক পর্যায়ে টিএসসির ভেতরে তাদের আশ্রয় নিতে দেখা যায়। এর কিছুক্ষণ পরই নাটকীয়ভাবে ভিপি হিসেবে নুরুলকে মেনে তাকে অভিনন্দন জানাতে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন টিএসসিতে যান। পরাজয় স্বীকার করে নিয়ে নুরুলকে সর্বাত্মক সহযোগিতারও আশ্বাস দেন শোভন। কোলাকুলি করে ছবি তোলেন। এসময় সেখানে উপস্থিত অন্যদের সঙ্গে ছবি তোলার প্রসঙ্গ এলে শোভনকে সন্ত্রাসী হিসেবে উল্লেখ করে ছবি তুলতে অস্বীকৃতি জানান অরণি।

শোভনের সামনেই অরণি বলেন, “না ভাই কালকে রোকেয়া হলে এই লোক নিজে আমাদের বলছে মারধর করতে। এর সঙ্গে ছবি তুলব না। সন্ত্রাসীদের সঙ্গে ছবি তুলি না।”

এই বক্তব্যে আশপাশে থাকা অনেকেই হাততালি দিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। টিএসসির অডিটোরিয়ামের ভেতরের এই ঘটনার একটি ভিডিও ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

আজকের পত্রিকাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের এই শিক্ষার্থী জানান, খুব স্বাভাবিক ভাবেই ছাত্রলীগের ভিপি প্রার্থী শোভনের সঙ্গে তার আলাপ হয়েছে। যখন ছবি তোলার প্রস্তাব এসেছে তখন তিনি এমন মন্তব্য করেছেন। এর মধ্যে সাহসীকতার কিছু নেই বলে তিনি মনে করেন।

অরণি সেমন্তি খান বলেন, আমরা সকল পদে পুন:নির্বাচন চেয়েছি। এখন এই দাবিতে যারা অনশন করছেন তাদের পাশে অাছি। এর বাইরে আমরা রোকেয়া হলের প্রভোস্টের পদত্যাগ চেয়েছি। ছাত্রনেতাদের বিরুদ্ধে যে মামলা দায়ের করা হয়েছে তা প্রত্যাহার করতে হবে।

নব নির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুরু বলেছেন ছাত্রলীগকে নিয়ে ক্যাম্পাসে সহ অবস্থান চান তিনি। এ প্রসঙ্গে অরণি বলেন, এটি নুরুল হক নুরুর ব্যক্তিগত মত। এ বিষয়ে কিছু বলার নেই।

আজকের পত্রিকা/এমএইচএস