সংসার রক্ষার দাবিতে স্বামীর বাড়িতে স্ত্রীর অনশন

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে এক সন্তানের মা রুবিনা খাতুন (২৫) পুনরায় সংসার রক্ষার দাবিতে স্বামীর বাড়িতে অনেশন শুরু করেছে।

শনিবার সকলে তার স্বামীর বাড়িতে পূনরায় সংসার বাঁচানোর জন্য অনশন শুরু করেন স্ত্রী রুবিনা খাতুন। সে চিরিরবন্দর উপজেলা সদরের মাঝাপাড়া গ্রামের বাদশা হোসের মেয়ে বলে জানা গেছে। তাদের আরাবী নামের ৪ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

অভিযুক্ত স্বামী আলাউদ্দিন ভূইয়া রনি (২৭) বাড়ি আব্দুলপুর ইউনিয়নের চিরিরবন্দর উপজেলা সদর কোটপাড়ার মৃত রুহুল আমিনের পূত্র। সে পেশায় একজন ব্যবসায়ী।

স্ত্রীর রুবিনা খাতুন জানায়, অভিযুক্ত স্বামী আলাউদ্দিন ভূইয়া রনি (২৭) এর সঙ্গে তার দীর্ঘ ৯ বছরের সংসার। সংসার চলাকালীন সময়ে দীর্ঘদিন ধরেই তার পরিবারের চাপে বিভিন্ন সময়ে স্বামী রনি যৌতুকের টাকা দাবি করে থাকে। যৌতুকের টাকা দিতে রাজি না হলে সে আমাকে বিভিন্ন সময়ে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। এভাবে চলতে থাকা অবস্থায় একদিন সে আমাকে ঘুরতে নিয়ে যায় এবং সেখানে সে বলে তোমাকে আমি ডিবোর্স দিয়েছি তুমি এখন আমার স্ত্রী না। এখন তুমি বাড়ি চলে যাও। পরে সে আমাকে আমার অজান্তে ডির্বোস দেয় বলে দাবি করে সবাইকে জানিয়ে দিলে আমি আমার ছেলেকে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যাই।

এর কিছুদিন পরেই সে তার নিজের ভুল বুঝতে পরে আমাকে মুঠোফোনে নিজেই যোগাযোগ করে দেখা করতে বললে আমিও তার সঙ্গে পূনরায় দেখা করি এবং বাইরে একসঙ্গে সময় কাটাই। কিন্তু সে তার বাড়িতে আমাকে নিতে নারাজ। তাই আমি আমার ছেলের ভবিৎষতের কথা চিন্তা করে আমার সাজানো সংসার রক্ষার জন্য নিজের ঘরে ফিরে এসেছি। কিন্তু পরিবারের লোকজন আমাকে মেনে নিতে রাজি না হওয়ায় আমি চিরিরবন্দর থানায় একটি অভিযোগ করি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত স্বামী রনির সঙ্গে মুঠোফোনে (০১৭৩৬০৬৪০৫৬) যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে থাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ পিপিএম মাহবুবুর রহমান সরকার জানান, রুবিনা তার সংসার সে সেখানেই করুক সেটি আমরা সবাই চাই। কিন্তু তার পরিবারের লোকজন রুবিনাকে বাড়ি থেকে বের করার জন্য পুলিশের সঙ্গে মুঠোফোনে অসৌজন্য মূলক আচরণ করছে।

মোহাম্মদ মানিক হোসেন/চিরিরবন্দর