শ্রীলঙ্কার গির্জা ও হোটেলে এই সিরিজ বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। ছবি: সংগৃহীত

শ্রীলঙ্কায় ২১ এপ্রিল রবিবার ইস্টার সানডে উদযাপনের সময় গির্জা ও হোটেলে ভয়াবহ বোমা হামলার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৩৫৯ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন ৫০০ জনেরও বেশি মানুষ। পুলিশের বরাত দিয়ে, মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

শ্রীলঙ্কার গির্জা ও হোটেলে এই সিরিজ বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। ২৩ এপ্রিল মঙ্গলবার আইএস পরিচালিত সংবাদমাধ্যম আমাক নিউজ অ্যাজেন্সিতে শ্রীলঙ্কায় হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। এর আগে দেশটির চরমপন্থী ইসলামিক গোষ্ঠী ন্যাশনাল তাওহীদ জামায়াতকে হামলার মূল সন্দেহভাজন হিসেবে দায়ী করে সরকার।

শ্রীলঙ্কার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ২৩ এপ্রিল মঙ্গলবার মোট ৩২১ জন নিহত হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। ওই দিনই শ্রীলঙ্কায় জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। তিন মিনিট শোকে স্তব্ধ ছিল সারা দেশ।

এখন পর্যন্ত শ্রীলঙ্কায় নিহতদের মধ্যে ৩৮ জন বিদেশি রয়েছেন বলে জানা গেছে। তাদের মধ্যে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুফাতো ভাই শেখ সেলিমের নাতি একজন।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হওয়া হামলার প্রতিশোধ নিতে শ্রীলঙ্কায় হামলা হয়েছে বলে পার্লামেন্টে দেয়া এক বক্তৃতায় জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী রুয়ান বিজয়াবর্ধনে। গোয়েন্দা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে তিনি এ মন্তব্য করেছেন।

তবে এনডিটিভি জানিয়েছে,  প্রথম আত্মঘাতী হামলার দুই ঘণ্টা আগেই তাদের সতর্ক করেছিল ভারতীয় গোয়েন্দা বাহিনী। এছাড়াও হামলার ১০ দিন পূর্বে শ্রীলঙ্কার পুলিশ প্রধান সতর্কবার্তা পেয়েছিলেন।

আজকের পত্রিকা/বিএফকে/সিফাত