ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও তারা শ্রীলংকায় অবস্থান করছিলেন। ছবি: সংগৃহীত

শ্রীলংকায় ইস্টার সানডের দিন গির্জা ও হোটেলে বোমা হামলার পর দেশটি থেকে ২০০ মুসলিম নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একইসঙ্গে প্রায় ৬০০ বিদেশি নাগরিককেও বহিষ্কার করেছে দেশটি। বার্তা সংস্থা এএফপি এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

শ্রীলংকার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভ্যাজিরা অ্যাবেওয়ার্দেনা বলেন, ‘বহিষ্কৃত মুসলিম নেতারা শ্রীলংকায় বৈধভাবেই প্রবেশ করেছেন। কিন্তু ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও তারা শ্রীলংকায় অবস্থান করছিলেন। এ কারণে তাদের জারিমানা করে বহিষ্কার করা হয়েছে’।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘২১ এপ্রিলের ধারাবাহিক হামলার পর উদ্ভূত পরিস্থিতির বিবেচনায় আমরা ভিসা দেওয়ার পদ্ধতি পর্যালোচনা করে দেখছি। ধর্মীয় নেতাদের ভিসা দেওয়ার ব্যাপারে আমরা বিধিনিষেধগুলো আরো কঠোর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি’।

তবে যাদেরকে বহিষ্কার করা হয়েছে তারা কোন দেশের নাগরিক সে বিষয়ে কিছুই জানাননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। কিন্তু শ্রীলংকার পুলিশ বলছে, বহিষ্কৃতরা বাংলাদেশ, ভারত, মালদ্বীপ এবং পাকিস্তানের নাগরিক।

এছাড়াও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে এমন অনেক ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা বিদেশ থেকে ধর্মপ্রচারক আনে। এ বিষয়ে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু সম্প্রতি তাদের অনেকেই সমস্যা তৈরি করছে। ফলে আমরা এবার তাদের প্রতি আরো বেশি মনোযোগ দিব।

আজকের পত্রিকা/বিএফকে