ভারতীয় গরু।

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ২৩ এপ্রিল মঙ্গলবার তৃতীয় ধাপে ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। দিল্লির মসনদ দখলের লড়াইয়ে কংগ্রেস-বিজেপির দ্বৈরথ উদয়াস্ত ছুটে চলেছে। একদিকে দেশ চষে বেড়াচ্ছে গান্ধী পরিবার। অন্যদিকে নরেন্দ্র মোদির বিজেপি। আর মাঝে বহু আঞ্চলিক ও জাতীয় রাজনৈতিক দলের প্রচারণায় মুখর বিশাল ভারত। চারদিকে কেবল প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি।

‘কংগ্রেস করে দেখাবে’ প্রতিশ্রুতি দিয়ে গত ২ এপ্রিল ইশতেহার প্রকাশ করে কংগ্রেস। তার পাঁচ দিনের মাথায় ‘দৃঢ়কল্প ভারত, শক্তিশালী ভারত’ মূল প্রতিপাদ্যে ৭৫ প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইশতেহার ঘোষণা করে বিজেপি। নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার জন্য দল ও প্রার্থীরা মরিয়া। ভাটারদের মন ভজাতে অস্বাভাবিক, অদ্ভুত ও হাস্যকর প্রতিশ্রুতির ছড়াছড়ি চলছে।

এর মধ্যে অস্বাভাবিক প্রতিশ্রুতিতে এগিয়ে আছে সাঁঝি বিরাসত পার্টি। তাদের ইশতেহারে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে নির্বাচনে জিতলে তারা মদের দাম অর্ধেক করে দিবে। প্রতিটি মুসলিম পরিবারকে ঈদের সময় বিনামূল্যে দেওয়া হবে একটি করে ছাগল। কন্যা সন্তান জন্মালেই ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে। প্রত্যেক নারীকে বিনামূল্যে দেওয়া হবে সোনার গয়না। প্রত্যেক তরুণকে বিনামূল্যে পিএইচডি পর্যন্ত শিক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। মেয়েদের বিয়ের সময় আড়াই লাখ টাকা অনুদান। বেসরকারি হাসপাতালে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত চিকিত্সার ব্যবস্থা করা হবে প্রভৃতি।

মধ্যপ্রদেশের বিজেপি নেতা অলোক শর্মা ঘোষণা দিয়েছেন, কোনো, গো-মাতার অস্বাভাবিক বা অসময়ে মৃত্যু হলে শ্মশানে দাহ করা হবে। গরু সৎকার করতে শ্মশান হবে।

এদিকে ক্ষমতায় বসতে কংগ্রেসের ইশতেহারে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে, আগামী মার্চের মধ্যে ২২ লাখ চাকরির ব্যবস্থা করবে। প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে বছরে ৭২ হাজার রুপি করে দেওয়া হবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের গরিব কৃষকরা পাঁচ বছরে তিন লাখ ৬০ হাজার রুপি করে পাবেন।

এরকম প্রতিশ্রুতি ৫ বছর আগের নির্বাচনে মোদি দিয়ে ব্যর্থ হন। ‘আচ্ছে দিন’ স্ল্লোগান দিয়ে গত নির্বাচনে মোদি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন দুই কোটি লোকের চাকরি দেওয়া হবে এবং প্রত্যেক নাগরিকের ব্যাংক একাউন্টে ১৫ লাখ টাকা করে দেওয়া হবে। কিন্তু বাস্তবে তা কার্যকর করতে ব্যর্থ হন তিনি।

আজকের পত্রিকা/এমএআরএস