শোক দিবসের প্রস্তুতিকে গরু আর রাখালের গল্পের সঙ্গে তুলনা করে ফেসবুকে স্টাটাস দিয়েছেন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সুমনা শারমিন।

বুধবার তিনি তার ফেসবুক থেকে এমন স্টাটাস দেন। সেখানে তিনি অফিস স্টাফদের গরু আর নিজেকে রাখাল হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে আশাশুনি উপজেলা সমাজসেবা অফিসে অফিস সহায়ক তানভির হোসেন জানান, শোক দিবস উপলক্ষ্যে কিছু প্রতিবন্ধি উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। আর কিছু চেক বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া বেশী কিছু আয়োজনে ছিল না। উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ম্যাডামের ফেসবুক স্টাটাসের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান।

অন্যদিকে, ফিল্ড সুপার ভাইজার শাহিনুর ইসলাম বলেন, সুমনা শারমিন আমাদের অফিসার। তিনি আমাদের ফেসবুকে গরু বলে সম্মোধন করেছেন এটা আমি এখনো দেখিনি। না দেখা পর্যন্ত আমার বিশ্বাস হচ্ছে না।

আশাশুনি উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সুমনা শারমিন বলেন, শোক দিবস উপলক্ষ্যে তিনজন প্রতিবন্ধির মাঝে উপকরণ ও ঋণের চেক দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তিনজনকে উপবৃত্তির তিন হাজার টাকা করে চেক দেওয়া হয়েছে। আর শোক দিবসের র‌্যালী ও শ্রদ্ধাজ্ঞলী উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে একত্রে দেওয়া হয়েছে।

অফিস স্টাফদের গরু সম্মোধন করে ফেসবুকে স্টাটাস দেওয়ার বিষয়ে সমাজসেবা কর্মকর্তা সুমনা শারমিন জানান, আমার অফিসের স্টাফরা কাজ করছিল না সেজন্য আমি একটা গ্রুপে এটা লিখেছি। সেটা আপনার জানার কথা নয়। আপনি জানলেন কিভাবে ?

উত্তোজিত হয়ে এই সমাজসেবা কর্মকর্তা আরও বলেন, আমার স্টাফরা কাজ করছে না। আমি বিতৃষ্ণা হয়ে আমার পারসোনাল গ্রুপে এটা লিখেছি। আমি আমার স্কুলের একটা গ্রুপে আমার স্টাফরা গরু এটা আমি লিখেছি। আপনি এটি পেলেন কিভাবে ?

ফেসবুক স্টাটাসে (পাঠকদের জন্য হুবহু) তিনি লিখেছেন, ইট’স সরকারি চাকরি, ম্যান….সবাই যখন এই ঝুম বৃষ্টির দিনে খিচুড়ি-গোমাংসের রসনা তৃপ্তি উপভোগ করছে, আমি তখন (৩০+৯৯=) ১২৯ টি গরুকে (৩০ জন অফিশিয়াল স্টাফ আর ৯৯ জন মাস্টার রোলে নিয়েগ প্রাপ্ত স্টাফ ) নিয়ে শোক দিবসের প্রোগ্রামের প্রস্তুতি আর ক্যাপিটেশন গ্রান্ড নিয়ে অফিস সামলানোর আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি !!! রাখালই শুধু জানে, ১২৯ টা গরু পালার কী সুখ !!!!!

আশাশুনি উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার সুমনা শারমিনের দেওয়া ফেসবুক স্টাটাসের বিষয়ে জেলা সমাজসেবা কর্যালয়ের উপ পরিচালক দেবাশীষ সরদার বলেন, আমার ফেসবুকটি বন্ধ থাকায় বিষয়টি আমার দৃষ্টিতে আসেনি। আশাশুনি সমাজসেবা কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে তিনি এমন ফেসবুক স্টাটাস দেননি বলে জানিয়েছেন। তবে ঘটনাটি আমি খোঁজ খবর নিয়ে দেখছি।

বৈশাখী/সাতক্ষীরা