কোটি দর্শকের চোখ এখন খুঁজছে বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। ছবি:সংগৃহীত

ক্রিকেট দুনিয়ার সব থেকে বড় লড়াই আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ এর গ্রুপ পর্বের লড়াই শেষ। কোটি দর্শকের চোখ এখন খুঁজছে বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। যদিও তার জন্য আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে ক্রিকেট ভক্তদের।

অনেকটা প্রত্যাশিত দলই জায়গা পেয়েছ এবারের শেষ চারে,টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই বেশ দাপটের সঙ্গেই নিজেদের শক্ত অবস্থানের কথা জানান দিয়ে আসছিল-অস্ট্রেলিয়া,ভারত,ইংল্যান্ড এবং নিউজিল্যান্ড।

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালিস্টদের নায়ক কারা? এমন প্রশ্নের জবাবে উঠে আসবে রোহিত শর্মা, ডেভিড ওয়ার্নার, কেইন উইলিয়ামসন, জো রুটদের নাম।

কিন্তু এই প্রধান পারফর্মারদের পাশাপাশি সহায়ক ভূমিকা পালন করেছেন কিছু ক্রিকেটার।

অ্যারন ফিঞ্চ– বিশ্বকাপ শুরুর আগে হাসেনি তার ব্যাট। অনেকটা অফফর্মেই ছিলেন এই অজি ওপেনার। তবে বিশ্বকাপ যত ঘনিয়ে আসে ততই ফিঞ্চ গ্রহনযোগ্য হয়ে ওঠেন। প্রশ্ন ছিল এটা যে ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভ স্মিথ যখন ফিরে আসবেন তখন কীভাবে সামলাবেন ফিঞ্চ। দুই ওপেনার মিলে এক হাজারেরও বেশি রান তুলেছেন এই বিশ্বকাপে।

ডেভিড ওয়ার্নার ৩টি সেঞ্চুরি করে ব্যাটসম্যানদের তালিকায় আছেন ওপরের দিকে, কিন্তু আগের চেয়ে তার ধীরগতির ব্যাটিং আলোচনায় এসেছে বেশ কয়েকবার বিশেষ করে যে দুটি ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া হেরেছে ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। তাকে দুর্দান্ত ব্যাক আপও দিয়ে যাচ্ছেন ফিঞ্চ।

৯ ম্যাচে ৫০৭ রান তুলেছেন তিনি, সর্বোচ্চ ১৫৩। স্ট্রাইক রেট ১০২।

জসপ্রিত বুমরাহ– দুনিয়ার অন্যতম শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপ বলে সবসময়ই বেশ পরিচিত ভারত। তবে ইরফান পাঠানদের সেই যুগের অবসান হওয়ার পর ফাস্ট বোলারদের এক বিশাল ঘাটতি হয়ে যায় তাদের বোলিং লাইনআপে। তবে বোলিংয়েও বদলে গিয়েছে ভারত। এখন আর সেই আগের সময়ে নেই তারা। ব্যাটিংয়ের সাথে বোলিংয়েও প্রতিপক্ষ শিবিরে বেশ বড় হুমকির নাম ভারত। আর ভারতের দুর্দান্ত এই বোলিং লাইনআপের অন্যতম এক ভরসার নাম জসপ্রিত বুমরাহ। বিশ্বকাপের সেরা পাঁচ বোলারের মধ্যে সবচেয়ে কম ইকোনমি রেটে বল করেছেন তিনি।
বিশেষায়িত বোলিং অ্যাকশন, গতি ও ইয়র্কারে নিয়ন্ত্রণ সব মিলিয়ে অধিনায়কের জন্য পরিপূর্ণ প্যাকেজ এই বুমরাহ।

জনি বেয়ারস্টো– শুরুর ২ ম্যাচ কিছুটা নিষ্প্রভ ছিল এই ইংলিশের। প্রথম ম্যাচে ইমরান তাহিরের স্পিন বুঝতে না পেরে কোনো রান না নিয়ে আউট হয়ে যান। সেই ম্যাচে জয় পায় ইংল্যান্ড।
ভারত ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করে ইংল্যান্ডকে সেমিফাইনালে তুলে আনেন বেয়ারস্টো এরপর পাকিস্তানের সাথে ৩২, শ্রীলঙ্কার সাথে শুণ্য রানে এবং অস্ট্রেলিয়ার সাথে ২৭ আউট হন বেয়ারস্টো।তবে শেষ দুই ম্যাচ যখন ইংল্যান্ডের জন্য বাঁচা-মরার লড়াই তখন জনি বেয়ারস্টো করলেন দুটি সেঞ্চুরি। ভারতের বিপক্ষে ১১১, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১০৬ রান।

লোকি ফার্গুসন– গতি ও সুইংয়ে নিয়ন্ত্রণ এনে প্রতিপক্ষকে ব্যস্ত রেখেছেন লোকি ফার্গুসন। এবারের আসরে তাই বেশ সমীহ করেই খেলতে হচ্ছে কিউই এই পেসারকে। গতি ও নিয়ন্ত্রণ মিলিয়ে বিশ্বকাপের অন্যতম সফল বোলার ফার্গুসন। ৭ ম্যাচে ১৭টি উইকেট নিয়েছেন লোকি। ইকোনমি রেট পাঁচের নিচে, গড় সাড়ে আঠার।

ফলাফলও এসেছে ভালো, ৮ ম্যাচে ১৭টি উইকেট নিয়েছেন তিনি, প্রথম পাঁচ বোলারের মধ্যে তার ইকোনমি রেট সবচেয়ে কম। গড় ১৯.৫২। মূলত বুমরাহকে ঘিরেই গড়ে ওঠে ভারতের বোলিং পরিকল্পনা।