মরদেহ। প্রতীকী ছবি

নোয়াখালী সদরে তিন বছরের শিশু সন্তানসহ অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে উপজেলার আন্ডারচর ইউনিয়নের কাজীরচর গ্রামের আইয়ুব আলীর বাড়ি থেকে মরদেহগুলো উদ্ধার করা হয়। নিহতরে পরিবারের দাবী তাদের হত্যা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় পুলিশ নিহতের শ্বশুর ও শাশুড়িকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করলেও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শাশুড়িকে ছেড়ে দেয়া হয়।

নিহত গৃহবধুর পান্না বেগম (২২) ওই বাড়ির মো. সুমনের স্ত্রী ও তার মেয়ের নাম লামিয়া (০৩)।

নিহতের পরিবারের অভিযোগ, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রায় সময় পান্নাকে শারীরিক নির্যাতন করতেন শ্বশুর-ননদ ও দেবর। গতকালও পারিবারিক কলহের জের ধরে তাকে মারধর করে এবং গলাটিপে হত্যা করে। পরে শিশু সন্তানটি কান্না করলে তাকেও হত্যা করে তারা। হত্যার পর মা ও মেয়ে গলায় রশি বেঁধে ঝুলিয়ে আত্যহত্যা বলে প্রচারণা চালায়।

সুধারাম থানা পুলিশ জানায়, খবর পেয়ে গতকাল দুপুরেই তারা ঘটনাস্থল থেকে মরদেহগুলো উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত গৃহবধুর শ্বশুর আইয়ুব আলীকে আটক করা হয়।

সুধারাম থানার ওসি নবীর হোসেন জানান, নিহতের মরদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের শ্বশুরকে আটক করা হয়েছে। লিখিত মামলা দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

-এস