ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে রায়হান ভূঁইয়া জনি নামের এক বাংলাদেশিকে অপহরণের পর অমানবিক নির্যাতন করেছে লিবিয়ার কিছু প্রভাবশালী অপহরণকারী ও প্রতারক চক্র। এরপর নির্যাতিত জনিকে নির্যাতনের ভিডিও তারা দেশে থাকা স্বজনদের কাছে পাঠিয়ে ২৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করে।

জনির স্বজনদের অভিযোগ, তিন মাস আগে অপহরণের পর অমানসিক নির্যাতনের ভিডিও স্বজনদের কাছে পাঠিয়ে দফায় দফায় ২৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করে নেয় লিবিয়ায় থাকা ওই প্রভাবশালী অপহরণকারী চক্রটি।

রায়হান ভূঁইয়া জনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া উপজেলার হীরাপুর গ্রামের শাহনেওয়াজ ভূঁইয়ার ছেলে। ২০১৮ সালের অক্টোবরে স্পেন যাবেন বলে লিবিয়ায় পাড়ি জমান জনি। চলতি বছরের জুন মাসে লিবিয়া থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। দীর্ঘ তিন মাস আটক রেখে তার ওপর চালানো হয় অমানবিক নির্যাতন। অপহরণকারী চক্র নির্যাতনের সেই ভিডিও ফুটেজ ইন্টারনেটের মাধ্যমে পরিবারের স্বজনদের কাছে পাঠিয়ে তাদের কাছে মুক্তিপণ দাবি করে।

নির্যাতনের ওই ভিডিও দেখার পর জনির স্বজনরা সহ্য করতে না পেরে সর্বস্ব বিক্রি করে ফেলে। পরে কয়েক দফায় দেশে ও বিদেশে অপহরণকারী চক্রের সক্রিয় সদস্যদের কাছে ২৫ লাখ টাকা পাঠায়। তবে টাকা দিলেও জনি ভূঁইয়াকে এখনও তার স্বজনরা ফিরে পাননি।

তবে জানা গেছে, সম্প্রতি লিবিয়ার সেনাবাহিনী জনিকে উদ্ধার করে লিবিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাছে পাঠিয়েছে।তিনি বর্তমানে বেশ অসুস্থ। স্বাভাবিক চলাচলের শক্তি নেই তার। চোখেমুখে ভয়ের ছাপ আর নির্যাতনের চিহ্ন তার সমস্ত শরীরে বয়ে বেড়াচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, স্পেন কিংবা ইতালিসহ ইউরোপের দেশগুলোতে অবৈধভাবে প্রবেশের উদ্দেশ্যে লিবিয়ায় পাড়ি জমায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শত শত যুবক। কিন্তু স্বপ্নের দেশ স্পেন বা ইতালিতে পাড়ি জমাতে গিয়ে লিবিয়ায় বাংলাদেশি দালাল চক্রের প্রতারণার শিকার হয়ে নিঃস্ব হচ্ছে ওই সব অসহায় পরিবার।

আজকের পত্রিকা/সিফাত