লালমনিরহাটে সংবাদ সম্মেলন

লালমনিরহাট জেলা আওয়ামীলীগের অফিস ভাঙচুরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির আহবায়ক এরশাদ হোসেন জাহাঙ্গীর।

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে লালমনিরহাট প্রেসক্লাবের হল রুমে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সদর উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক এরশাদ হোসেন জাহাঙ্গীর বলেন, ৪ জুলাই জেলা আওয়ামী লীগের নিয়মিত মাসিক সভা চলাকালীন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন এমপি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি না থাকায় আহবায়ক কমিটি গঠনের লক্ষে সাবেক ছাত্রনেতা এরশাদ হোসেন জাহাঙ্গীরের নাম প্রস্তাব করেন।

ওই প্রস্তাব উপস্তিত সকলের সম্মতিক্রমে এরশাদ হোসেন জাহাঙ্গীরকে উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক করা হয়।

এরশাদ হোসেন জাহাঙ্গীরকে আহবায়ক করে সকল ইউনিয়নের সভাপতি/সম্পাদককে ওই কমিটির সদস্য করে উপজেলা আ’লীগের আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

নবগঠিত উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটি গত ৬ জুলাই রাত সাড়ে ৮টায় জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে মতবিনিময় চলাকালীন সময় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাবেদ হোসেন বক্কর নেতৃত্বে ২০-২৫ জন দুর্বৃত্ত অর্তকিতভাবে দলীয় কার্যালয়ে হামলা চালায় এবং ব্যপক ভাংচুর চালায়।

এতে কার্যালয়ের আসবাবপত্র, দরজা, জানালা ভাঙচুর এবং ইউনিয়ন সভাপতি সম্পাদকদের লাঞ্ছিত করেন। এ ঘটনায় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি, সম্পাদক ও দপ্তর সম্পাদকের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য তাহমিদুল ইসলাম বিপ্লব, আশরাফুল হক মিঠু, গোলাম ফারুক, মোজাম্মেল হক মানিকসহ জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব পাটোয়ারী, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী, কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সালাউদ্দিন সুমন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান রানু প্রমুখ।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জাবেদ হোসেন বক্করের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন , জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে হামলার বিষয়ে তার বা তাদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না/লালমনিরহাট