লক্ষ্মীপুরে আশ্রয়ন প্রকল্প প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চর রমণী মোহন ইউনিয়নে ভূমিহীন দরিদ্রদের জন্য নির্মিত আশ্রয়ন প্রকল্পটি উপজেলা প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ আওতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক জান্নাতুল মাওয়া নামে এ আশ্রয়ন কেন্দ্রের ব্যারাক হস্তান্তর করা হয়।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে প্রকল্পটি হস্তান্তর করেন কুমিল্লা সেনানিবাসের ১৬ ফিল্ড রেজিমেন্ট আটিলারির লেঃ কর্ণেল উজ্জল আহমেদ (পিএসসি) পক্ষে ক্যাম্পেট মোঃ রিয়াদ হোসেন।

উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রকল্পটি গ্রহণ করেন ইউএনও শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা (পিআইও) মোশারফ হোসেন, উপ-সহকারি প্রকৌশলী আরিফুর রহমান, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৩৩ পদাতিক ডিভিমনের ওয়ারেন্ট অফিসার মোঃ নাজমুল আলম, চর রমণী মোহন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ফছয়াল, মেসার্স খন্দকার ট্রেডার্স প্রোঃ খন্দকার মোহাম্মদ জাকির হোসেন, ইউপি সদস্য নয়ন বেগম ও সেনাবাহিনীর অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

প্রশাসন সূত্র জানায়, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্তাবধানে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে সেনাবাহিনীর ৩৩ পদাতিক ডিভিশন।

জান্নাতুল মাওয়া আশ্রয়ন-২ প্রকল্পটিতে ১২০টি ভূমিহীন দরিদ্র পরিবারের বসবাসের জন্য ২৪টি সিআইসিট ব্যারাক নির্মাণ করা হয়েছে। এর মোট দৈর্ঘ্য ৬৩০ ফুট ও প্রস্থ ২৯ ফুট। ৫ ইউনিট বিশিষ্ট শেডগুলোর প্রতিটির মেঝে পাঁকা ও সম্পূর্ণ টিন দ্বারা আচ্ছাদিত।

তাছাড়া প্রকল্পের বাসিন্দাদের বিশুদ্ধ খাবার পানির জন্য ৬টি গভীর নলক‚প স্থাপন করা হয়েছে। সেইসঙ্গে নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে ৭২টি শৌচাগারও। এ প্রকল্পের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ছিলো মেসার্স খন্দকার ট্রেডার্স।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল জানান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ন প্রকল্পের আওতায় উপজেলার চররমনিমোহন ইউনিয়নের চরমেঘায় আশ্রয়ন প্রকল্পটি নির্মিত হয়েছে।

২.৫ একর খাস জমির উপর নির্মিত প্রকল্পটিতে প্রকৃত ভূমিহীন ও দরিদ্র্রদের যাছাই-বাছাই করে ঘরগুলি বরাদ্দ দেয়া হবে।

-সোহেল রানা