রৌমারীতে আগাম সবজি জানান দিচ্ছে শীতের আগমন

ভোরবেলার শিশির ভেজা ঘাস ও হালকা কুয়াশা প্রকৃতিতে শীত আসার জানান দিচ্ছেএরই মধ্যে সারা দেশে শীতের আমেজ শুরু হয়েছে থেমে নেই রৌমারীর মুক্তাঞ্চলেও  ষড়ঋতুর এই দেশে হেমন্ত মানেই শীতের আগমনী বার্তা 

বাজারে মিলছে বাহারি শীতের সবজিব্যতিক্রম নয় কুড়িগ্রামের রৌমারীতেরৌমারী উপজেলায় প্রায় সব বাজারই শীতের শাক-সবজি পাওয়া যাচ্ছে 

এর মধ্যে রয়েছে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত ছাড়া  বাইরে থেকে আসা শাক-সবজি নেইস্থানীয়দের কাছে যেগুলো লোকাল’ বলেই পরিচিত

রৌমারী কাঁচা বাজারে  সরেজমিনে দেখা গেছে, সবজি বিক্রেতা ছোরহাব ও মুকুল ইসলাম মিতুল  পাশাপাশি চালুনিতে  বেগুন সাজিয়ে রেখেছেনদেখতে প্রায় একই রকম হলেও দুই টুকরির বেগুনের দামের পার্থক্য বেশ বড়একটি বল  বেগুনের দাম প্রতি কেজি ৩০ টাকাএটি দেশিবেগুন নামে পরিচিতআর পাশের টুকরির বেগুন প্রতি কেজি  ২০-৩০  টাকাস্বাদের ভিন্নতা চালানিবেগুন ও লোকালবেগুনের দামেও বড় পার্থক্য গড়ে দিয়েছে

রৌমারী উপজেলার লোকাল সবজির জন্য বেশ জনপ্রিয় উপজেলার কাঁচা বাজার  স্থায়ী সবজি বাজারপ্রতিদিন ভোরবেলা এখানে স্থানীয় বিক্রেতারা সুস্বাদু নানা জাতের সবজি নিয়ে আসেনদাম একটু  বেশি হলেও ক্রেতাও প্রচুর

বৃহৎপতিবার ২১ নভেম্বর  সকালে বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সারি সারি শীতের সবজিলাউ, মুলা, শসাগাজর, বেগুন, কপি, লালশাক, লাউপাতাসহ নানা জাতের টাটকা শাক বাজারে উঠেছেবাজারে ক্রেতার ভিড়ও উপচে পড়া

স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত প্রতিটি সবজির দামই বেশ চড়াআকারভেদে প্রতিটি লাউ ২০ থেকে ৬০ টাকা, মুলা প্রতি কেজি ২৫ টাকা, সিম প্রতি কেজি ৫০, প্রতি ফুল কফি ৬০ কেজিদেশি লেবু ৫ টাকা পিস, শসা ৩০ থেকে ৪০ টাকা, বেগুন ৩০ থেকে ৫০ টাকা, বরবটি ৪০  থেকে ৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে 

ক্রেতা প্রদীপ সাহা বললেন, ‘লোকাল সবজির মজাই আলাদাএর স্বাদ-গন্ধ মন কেড়ে নেয়যদিও দামটা একটু বেশিকেবল বেগুনই নয়, রৌমারীর  বাজারে এখন শীতকালীন মুলা, লাউ, শিম, টমেটো, বরবটি, বাঁধাকপি, ফুলকপি সবই লোকাল এবং চালানি দুটোই আছেতবে লোকাল সবজির দর ও কদর দুটোই বেশি

রৌমারী কাঁচা বাজার করতে আসা হাবিব নামের এক ব্যক্তি  বলেন, ‘এক দিন পরপরই এখানে এসে নানা জাতের টাটকা সবজি কিনিদাম একটু বেশি হলেও স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত সবজিতে স্বাদ-গন্ধটা একটু টের পাওয়া যায়

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে সবজি খেতে মাত্রাতিরিক্ত সার, কীটনাশক ব্যবহার করায় এবং উচ্চফলনশীল জাতের বীজের কারণে সবজির সেই আদি স্বাদ যেন হারিয়ে যাচ্ছেতাই এ ব্যাপারে কৃষি বিভাগকে আরও উদ্যোগী হতে হবে

উপজেলার  রৌমারী কাঁচা  বাজার , দাঁতভাঙ্গা বাজার বড়াইকান্ডী বাজার , কর্তিমারী বাজার , সুইট মোড় , কাঠাল বাড়ি , এলাকার বিভিন্ন অস্থায়ী সবজি বাজারে এখন স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত সবজির বাজার জমজমাটসবজি বিক্রেতারা জানান, স্থানীয় সবজির চাহিদা তৈরি হওয়ায় কুড়িগ্রাম ও আশপাশের উপজেলাগুলোতে গত কয়েক বছরে সবজি উৎপাদনও কয়েক গুণ বেড়েছেলাভজনক হওয়ায় অনেকেই সবজি চাষে মন দিয়েছেন

-মাসুদ পারভেজ রুবেল/ কুড়িগ্রাম