রংপুর জেলার পীরগছায় স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যার পর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে স্বামী। পারিবারিক বিরোধের জেরে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ব্রাকের চৌধুরানী রামচন্দ্র পাড়া শাখার হিসাব রক্ষক তসলিমা রুমি সকাল থেকে নিজের অফিসে বসে কাজ করছিলেন। বেলা ১১টার দিকে তার স্বামী আব্দুল্লাহ আল মামুন স্বপন ওই অফিসে ঢুকেই ধারালো চাইনিজ কুড়াল বের করে এলোপাথারি তাকে কোপাতে থাকে। এক সময় মৃত ভেবে স্ত্রী রুমির ওড়না পেঁচিয়ে সিলিঙ ফ্যানে ঝুলে পড়ে স্বামী স্বপন।

সংশ্লিষ্টদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, বছর পাঁচেক আগে পীরগাছার সুবিদ গ্রামের তোজাম্মল হোসেনের মেয়ে রুমির সাথে বিয়ে হয় গাইবান্ধার বল্লমঝাড়ের সামসুল ইসলামের ছেলে স্বপনের। বিয়ের পর স্ত্রীকে রেখে কয়েক বছর বিদেশে থাকেন স্বপন। ছয় মাস আগে স্বপন দেশে ফিরলেও দাম্পত্য কলহের জেরে সংসার করতে রাজি ছিল না রুনি। আর এতেই ক্ষিপ্ত হয়ে স্বপন এই ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে।